October 28, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

পীরগঞ্জে সারিষার চাষ বেড়েছে

পীরগঞ্জে সারিষার চাষ বেড়েছে

পীরগঞ্জে সারিষার চাষ বেড়েছে

পীরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধিঃ হেমন্তের ফসল তুলতে না তুলতেই শীতের আগমনে সরিষার হলুদ ফুলে ভরে গেছে রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার মাঠ। চির সবুজের বুকে এ যেনো কাচা হলুদের আলপনা। যেদিকে চোখ যায় সেদিকেই যেনো ফুলের মেলা। প্রকৃতি সেজেছে অপরূপ সৌন্দর্যের নান্দনিক রূপে।
মাঠে মাঠে সরিষার হলুদ ফুলের সমারোহ। সরিষা চাষ উপযোগী আবহাওয়া অনুকূলে থাকায়, চলতি মৌসুমে উপজেলায় সরিষার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা আশা করছে কৃষি বিভাগ।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, প্রধান ফসল বোরো ধান চাষের পূর্বে রবি শস্য হিসেবে সরিষার চাষ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ জমিতে সরিষার চাষের পরই বোরো ধান রোপণের জন্য জমি প্রস্তুত করা শুরু হয়। এছাড়াও সরিষা চাষের পর ওই জমির উর্বরতা শক্তি, উৎপাদন ক্ষমতা এবং ফসলের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায়। তাই পরবর্তী ফসল উৎপাদনের সহায়ক হিসেবে কাজ করে এই রবি ফসল সরিষা।

কৃষি অফিস আরও জানায়, চলতি মৌসুমে উপজেলায় ১ হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষ করা হয়েছে। ১৫টি ইউনিয়নের মধ্যে পাঁচগাছী,শানেরহাট, পীরগঞ্জ সদর, বড় আলমপুর, টুকুরিয়া ও চতরা ইউনিয়নে সবচেয়ে বেশি জমিতে সরিষার চাষ করা হয়েছে। উপজেলার অধিকাংশ সরিষা চাষীদের সম্পূরক রবি ফসল হিসেবে সরিষা চাষে উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে সরিষার এই বীজগুলো সরকারের পক্ষ থেকে ১ হাজার ৩ শত ১০জন কৃষককে প্রণোদনা প্রদান করা হয়েছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সাদেকুজ্জামান সরকার বলেন, “চলতি মৌসুমে সরিষ চাষ উপজেলায় বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়াও সরিষার বাজার দরও অনেক ভালো। সরিষা ৭০- ৮০ দিনের মধ্যে স্বল্প সময়ে ঘরে তোলা সম্ভব। অল্প সময়ে এই সরিষা চাষের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এতে দুই ফসলি জমি তিন ফসলি জমিতে রুপান্তরিত হচ্ছে। সরিষা চাষ পরবর্তী বোরো ধান চাষের জন্য অনেক উপকারী। সরিষা চাষের পর জমিতে আগাছা কম হয়। তাই সব মিলিয়ে একজন সরিষা চাষী বিঘা প্রতি ৮-১০ হাজার টাকা লাভ করতে পারবেন।”