May 17, 2021

Jagobahe24.com news portal

Real time news update

পোলার্ডের তাণ্ডবে মুম্বাইয়ের অকল্পনীয় জয়

পোলার্ডের তাণ্ডবে মুম্বাইয়ের অকল্পনীয় জয়

পোলার্ডের তাণ্ডবে মুম্বাইয়ের অকল্পনীয় জয়

কিয়েরন পোলার্ডের তাণ্ডবে পাহাড়সম রান তাড়া করে অকল্পনীয় জয় নিজেদের তুলে নিলো চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। চেন্নাই সুপার কিংসের দেয়া ২১৯ রানের বিশাল লক্ষ্যে খেলতে নেমে চার উইকেটে জয়ের রেকর্ড গড়ল রোহিত শর্মার দল। আইপিএলের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রান তাড়ায় এটা দ্বিতীয় জয়। এর আগে পাঞ্জাব কিংসের বিপক্ষে ২২৪ রানের বিশাল লক্ষ্যে তাড়ায় জয় পেয়েছে রাজস্থান রয়েলস।

শনিবার দিল্লির অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় খেলাটি শুরু হয়। এ ম্যাচে টস হেরে ব্যাটিং করতে নেমে ৪ উইকেট হারিয়ে ২১৮ রানের পাহাড় গড়ে চেন্নাই। নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে মুম্বাই ৬ উইকেট হারিয়ে করে ২১৯ রান।

মাত্র ৩৪ বলে ৮টি ছয় ও ৬টি চারের মারে ৮৭ রান করেন পোলার্ড। হাফসেঞ্চুরি করেন মাত্র ১৭ বলে। এর মধ্যে ছয় থেকেই আসে ৩৬ রান। তার ছক্কা বৃষ্টির এমন দানবীয় ইনিংসে দিশেহারা চেন্নাইয়ের বোলাররা খেই হারিয়ে ফেলেন।

মুম্বাইয়ের দারুণ শুরু এনে দেন দুই ওপেনার। কুইন্টন ডি ককের ব্যাট থেকে আসে ২৮ বলে ৩৮ ও রোহিত শর্মা করেন ২৪ বলে ৩৫ রান। এ ছাড়া ক্রুনাল পান্ডিয়া ২৩ বলে ৩২ ও হার্দিক পান্ডিয়া করেন ৭ বলে ১৬ রান। শেষ ওভারে ধাওয়াল কুলকার্নি ছিলেন নতুন ব্যাটসম্যান। তাকে কোনো স্ট্রাইকই দেননি পোলার্ড। শেষ ওভারে ১৯ রান নিয়ে দলকে ভাসান জয়ের উচ্ছ্বাসে।

চেন্নাইয়ের হয়ে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নেন স্যাম কারান। সবচেয়ে খরুচে বোলার ছিলেন লুঙ্গি এনগিডি। তিনি ৪ ওভারে ৬২ রান দিয়ে কোনো উইকেটের মুখ দেখেননি। এক উইকেটে ১১২ রান করা চেন্নাই এরপর মাত্র ৪ রানের ব্যবধানে হারায় ৩ উইকেট। ৩৬ বলে পাঁচটি চার ও ৫টি ছক্কায় ৫৮ রান করেন চেন্নাইয়ের ইংলিশ অলরাউন্ডার মঈন আলী। ২৮ বলে দুই চার ও চারটি ছক্কায় ৫০ রান করে ফেরেন ডু প্লেসিস। ক্যারিয়ারের ২০০তম ম্যাচে ব্যাটিংয়ে নেমে ২ রানে ফেরেন সুরেশ রায়না।

২১৯ রানের বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে উড়ন্ত সূচনা করে মুম্বাই। ৭.৪ ওভারে উদ্বোধনী জুটিতে ৭১ রান করেন কুইন্টন ডি কক ও রোহিত শর্মা। এরপর মাত্র ১০ রানের ব্যবধানে নেই তিন উইকেট। ২৪ বলে ৩৫ রান করে ফেরেন অধিনায়ক রোহিত শর্মা। মাত্র ৩ রানে আউট সুরাইয়া কুমার যাদব। ২৮ বলে ৩৮ রানে ফেরেন অন্য ওপেনার কুইন্টন ডি কক।

চতুর্থ উইকেটে করুনাল পান্ডিয়াকে সঙ্গে নিয়ে ৪৪ বলে ৮৯ রানের জুটি গড়েন কায়রন পোলার্ড। একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকিয়ে মাত্র ১৮ বলে ফিফটি তুলে নেন পোলার্ড। দলীয় ১৭০ রানে ২৩ বলে ৩২ রান করে ফেরেন করুনাল।