September 26, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

২৮ রানে হেরে নিউজিল্যান্ডের কাছে সিরিজ হারল টাইগাররা

২৮ রানে হেরে নিউজিল্যান্ডের কাছে সিরিজ হারল টাইগাররা

২৮ রানে হেরে নিউজিল্যান্ডের কাছে সিরিজ হারল টাইগাররা

ডেস্কঃ নিউজিল্যান্ডকে তাদেরই মাটিতে হারানোর সুবর্ণ এক সুযোগ পেয়েছিল বাংলাদেশ। এক পর্যায়ে মনে হচ্ছিল দীর্ঘ দুই দশকের অপেক্ষার পালা ফুরোতে যাচ্ছে। তবে আশা জাগিয়েও শেষ পর্যন্ত হতাশাই উপহার দিয়েছে টাইগাররা। সিরিজের দ্বিতীয় টি-২০ ম্যাচটি ২৮ রানে হেরেছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল।
বৃষ্টিতে দ্বিতীয়বার খেলা বন্ধ হওয়ার পর ডার্ক ওয়ার্থ লুইস মেথডে বাংলাদেশের লক্ষ্য দাঁড়ায় ১৬ ওভারে ১৭০ রান। জবাবে নির্ধারিত ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল ৭ উইকেট হারিয়ে ১৪২ রান।

বাংলাদেশের হয়ে রান তাড়া করতে নামেন নাঈম শেখ ও লিটন দাস। মাঠে প্রথমে নামার সময় টাইগারদের লক্ষ্য ছিল ১৬ ওভারে ১৪৮ রান। কিন্তু ১.৩ ওভার যেতেই খেলা থামান আম্পায়াররা। তখন জানা যায়, ম্যাচ অফিসিয়ালরা হিসেবে ভুল করেছিলেন। ফলে কিছুক্ষণ খেলা বন্ধ থাকার পর নতুন টার্গেট নিয়ে খেলা শুরু হয়।

টার্গেট পুনরায় নির্ধারিত হওয়ার পরই আউট হন লিটন। তিনি ফেরেন ৬ রান করে। এরপরই নেমে পাল্টা আক্রমণ শুরু করেন সৌম্য সরকার। অপরপ্রান্তে তাকে সঙ্গ দেন নাঈম। মাত্র ২৫ বলে ফিফটি তুলে নেন সৌম্য। এরপরই ৫১ রান করে আউট হন তিনি।

অন্যপ্রান্তে থাকা নাঈম ওয়ানডে সুলভ ইনিংস খেলে যখন ৩৮ রানে ফেরেন, তখন কিছুটা চাপেই পরে যায় টাইগাররা। এই চাপ থেকে আর বেরোতে পারেনি বাংলাদেশ। আশা জাগিয়ে রিয়াদ বোল্ড হন ২১ রানে। আফিফ করেন ২ রান। দুজনকেই ফেরান অ্যাডাম মিলনে।

আশা যাওয়ার মিছিলে এরপর শুধু পরাজয়ের ব্যবধানই কমিয়েছেন ব্যাটসম্যানরা। মিঠুনের ১, সাইফউদ্দিনের ৩ বা মাহেদীর অপরাজিত ১২ রান দলের কোনো কাজে আসেনি। কিউইদের হয়ে দুটি করে উইকেট নেন টিম সাউদি, হামিশ বেনেট ও অ্যাডাম মিলনে।

এর আগে নেপিয়ারের ম্যাকলিন পার্কে টস জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন টাইগার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। নিউজিল্যান্ডের হয়ে ইনিংস উদ্বোধন করতে নামেন মার্টিন গাপটিল ও ফিন অ্যালেন। শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ছিলেন দুজন।

ইনিংসের চতুর্থ ওভারে বল করতে আসেন তাসকিন। তার করা দ্বিতীয় বলেই উড়িয়ে মারতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দেন অ্যালেন। তবে তা ধরতে পারেননি রিয়াদ।

টাইগার সমর্থকদের বেশিক্ষণ হতাশায় রাখেননি তাসকিন। নিজের একই ওভারের শেষ বলে নাঈম শেখের ক্যাচ বানিয়ে অ্যালেনকে সাজঘরে পাঠান তিনি। এর আগে কিউই ওপেনার করেন ১৭ রান।

পাওয়ার প্লের শেষ ওভারের শেষ বলে বাংলাদেশকে আনন্দে ভাসান মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ও তাসকিন আহমেদ। সাইফের করা বলটি ফ্লিক করেছিলেন গাপটিল। বাঁ দিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে ক্ষিপ্রতার সঙ্গে ক্যাচটি লুফে নেন তাসকিন। গাপটিল ফেরেন ২১ রানে।

এক বল পরই বিপদজনক কনওয়েকে ১৫ রানে ফেরান আগের ম্যাচ অভিষিক্ত মোহাম্মদ শরিফুল। তার ক্যাচ নেন মোহাম্মদ মিঠুন। দ্রুত ৩ উইকেট হারানোর পর দলের হাল ধরার চেষ্টা করেন উইল ইয়ং ও গ্লেন ফিলিপস। ইয়ংকে স্ট্যাম্পিংয়ের ফাঁদে ফেলে ১৪ রানে সাজঘরে ফেরান মাহেদী হাসান।

বৃষ্টির কারণে ১২.২ ওভার পর খেলা বন্ধ হয়ে যায়। পুনরায় খেলা শুরুর পর নিজেদের চেনা ছন্দেই ফেরে বাংলাদেশ। এবার মার্ক চ্যাপম্যানকে কট এন্ড বোল্ডের মাধ্যমে আউট করেন মাহেদী।

এরপরই পাল্টা আক্রমণ শুরু করে নিউজিল্যান্ড। গ্লেন ফিলিপস ও ড্যারিল মিচেল একের পর এক বল সীমানাছাড়া করতে থাকেন। বৃষ্টিতে আবারো খেলা বন্ধ হওয়ার আগে দুজনে মাত্র ২৫ বলে যোগ করেন ৬২ রান। এর আগে ২৭ বলে ফিফটি তুলে নেন ফিলিপস।

বৃষ্টির কারণে খেলা বন্ধ হওয়ার আগে ব্ল্যাকক্যাপসদের সংগ্রহ ছিল ১৭.৫ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৭৩ রান। বাংলাদেশের হয়ে ২ উইকেট নেন মাহেদী। এছাড়া তাসকিন, শরিফুল ও সাইফউদ্দিন একটি করে উইকেট নেন।