November 29, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

করোনাকালে রাজারামপুর - ফতেপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়

করোনাকালে রাজারামপুর - ফতেপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়

করোনাকালে রাজারামপুর – ফতেপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়

সুলতান আহমেদ সোনাঃ কারোনা কালে ৩১ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার বিকেলে অস্তগেছে ওই বছরের শেষ সূর্য,বিদায় নিয়েছে ২০২০ সাল। এরপর ২০২১ সালের প্রথম সূর্যের আগমন ঘটেছে শুক্রবার প্রত্যুশে। নববর্ষের প্রথমদিনটি ছিল শুক্রবার সরকারী ছুটির দিন। ক্যালেন্ডারের হিসেবে ওই দিন সরকারী ছুটি থাকলেও,এ দিনে পীরগঞ্জ উপজেলায় বছরের প্রথম দিনেই ২৩৭টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় এর ছাত্র/ছাত্রীদের হাতে নতুন বই তুলে দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।
এদিকে রাজারামপুর-ফতেপুর এলাকার শিক্ষার্থীরাও বই পেয়ে খুশি! গত ৭ জানুয়ারী বৃস্পতিবার সকাল ১১টায় উপজেলা সদর থেকে প্রায় ৫ কিঃমিঃ পশ্চিমে পীরগঞ্জ-খালাশপীর সড়কের পাশে অবস্থিত রাজারামপুর – ফতেপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ছাত্র/ছাত্রীদের আনাগোনা দেখে প্রধান শিক্ষকের কক্ষে প্রবেশ করে উপস্থিত শিক্ষার্থী ও তাদের অভিবাবকদের সাথে কথা হলে তারা তাদের অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন। বিনামুল্যে সন্তানদের হাতে পাঠ্যপুস্তক তুলে দেয়ায় শিক্ষার্থীদের অভিভাবক রোজিনা বেগম,মর্জিনা বেগম, কোহিনুর বেগম মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
অপর দিকে এসএমসির সভাপতি জামিউল হাসান জানিয়েছেন, করোনা কালে স্কুল বন্ধ ছিল কিন্তু তার পরেও রাজারামপুর – ফতেপুর সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাদেকুল ইসলাম প্রায়ই তার প্রতিষ্ঠানে এসেছেন। কারেনা কালে স্কুল ভবন পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখা, স্কুল চত্বরে মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে বৃক্ষ রোপন করেছেন তিনি। বর্তমানেও তিনি প্রতিনিয়ত স্কুলে যাতায়াত করছেন। এ সময় এসএমসির সভাপতি জামিউল হাসান আরো জানান, রাজারামপুর – ফতেপুর সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাহেব একজন ভালোমানুষ এবং দায়িত্বশীল ব্যক্তি। তার কর্মকান্ডে তিনি এবং এলাকার মানুষ খুশি।
এই প্রতিষ্ঠানের প্রধান সাদেকুল ইসলাম বলেছেন, করোনার কারনে বতর্মানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও শিক্ষার্থীদের ভর্তি,বই প্রদান,নিবন্ধন কার্ড, উপবৃত্তি নগদে পাবার ব্যাবস্থা করে দিতে স্কুলে আসতেই হয়। নানা রকম ব্যস্ততার মধ্যে আছেন জানিয়ে তিনি বলেন, করোনার কারনে স্কুল বন্ধ থাকায় সহকারী শিক্ষকগণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আসতে পারছেন না কিন্তু তাকে নিয়মিত আসতে হচ্ছে, কারণ দায়িত্ব বলে কথা।