December 8, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

সুযোগ সন্ধানী নেতা ও সাংবাদিকে ভরপুর দেশ ।। মোল্লা তানিয়া ইসলাম তমা ।।

সুযোগ সন্ধানী নেতা ও সাংবাদিকে ভরপুর দেশ ।। মোল্লা তানিয়া ইসলাম তমা ।।

সুযোগ সন্ধানী নেতা ও সাংবাদিকে ভরপুর দেশ – মোল্লা তানিয়া ইসলাম তমা

বিষয়টি কিন্তু একেবারেই নতুন নয় । আমার ধারনা বিগত তিন বা চার দশক আগের রাজনীতি বা সাংবাদিকতা যারা স্মৃতিতে আনতে পারবেন, তারা বিচলিত হবেন না । এমনও নয় যে এই দৃশ্যের সঙ্গে হয়তো তাদের নতুন পরিচয় । বরং বলা যেতে পারে এই কাহিনীর ব্যাপকতা হয়তো ধারাবাহিক নাটকের আকারে রুপ নিয়েছে । সমাজের কিছু মানুষ তো বরাবরই সরকারি দলে । যখন যে দল ক্ষমতায় তখন তারা সেই দলের । পাড়ার নেতা থেকে শুরু করে রাজনীতির বড় নেতা । আমার ধারনা ওই প্রকারের মানুষ নব্বই দশকের শেষ অবধি সমাজে গুটি কয়েক ছিলেন । সবাই তাদের চিনতেন । রাজনীতিতে ওই ব্যক্তিরা হাস্যরস বা বিনোদনের জোগান দিতেন । এখন সব মৌসুমে সরকারি দলে এমন নেতার সংখ্যা বেড়েছে ধরা যেতে পারে জনবিস্ফোরণের মতো । তাদের প্রবৃদ্ধি এতটাই হয়েছে যে, প্রকৃত রাজনৈতিক নেতাকর্মী খুঁজে পাওয়া মুশকিল । এখন প্রায় সকলেই সরকারি দলের । এমন কি তারা দৃশ্যমানও । প্রকৃতরা চলে গেছেন ‘দৃশ্যমান’ কর্মী-নেতাদের আড়ালে । এই দৃশ্যমানরা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের ভাষায় ‘কাউয়া’দের মুখোশ খসে পড়ছে প্রায় প্রতিদিন । ‘পরনে মুজিব কোট, বুকে নৌকার ছবি’–ওই প্রজাতিটি শুধু নিজেদের অপরাধ ঢাকতে বা প্রভাব বিস্তার করতেই ব্যবহার করে আসছে । হয়তোবা অতীতে বিএনপি’র সময়েও এমন প্রজাতির হাঁকডাক ছিল । অনেকেই বলে থাকেন ২০০১ সালের পর থেকে এমন ‘কাউয়া’ প্রজাতির প্রজনন বাড়তে থাকে । এ নিয়ে সকল দলের অভ্যন্তরে কথা হচ্ছে । তারা বিব্রতও বটে । ‘কাউয়া’ কি কেবল রাজনীতিতেই আছে? সাংবাদিকতায়ও তারা আছেন প্রবলভাবে । সংবাদপত্রের যুগে ছিল । অনেক নাম না জানা সাপ্তাহিক, দৈনিক, মাসিকের সম্পাদক, রিপোর্টার, ফটোগ্রাফাররা সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে বেড়াতেন । সচিবালয়ে ব্রিফকেস সম্পাদকও নাকি দেখা যেতো । যাদের পত্রিকার সকল অস্তিত্ব ওই ব্রিফকেসের মাঝে ছিল । ফকিরাপুল, দৈনিক বাংলা মোড়ের সেলোফিন ভিত্তিক পত্রিকার কথাও জানা ছিল । সেলোফিন পেপার কিনে ওপরে শুধু পত্রিকার মাস্ট হেড বদলে ফেলা হতো । ছিল শত শত অপরাধ ভিত্তিক পত্রিকার সাংবাদিকদের দৌরাত্ম্য । তারপর বেসরকারি টেলিভিশন বিস্ফোরণ ঘটার পরেও নানা রূপের সাংবাদিকরা আত্মপ্রকাশ করতে থাকেন । গ্রামে-গঞ্জে শহরে এমনকি রাজধানীতেও নানা দফতরে এদের প্রতাপ । এই প্রজাতির সাংবাদিকরা সাম্বাদিক,‘সাংঘাতিক’ ইত্যাদি নামে চিহ্নিত । অনলাইন ওয়েব পোর্টাল আসার পর এখন বাংলার ঘরে ঘরে অনলাইন পত্রিকা এবং সাংবাদিক । শুধু ওয়েব পোর্টালই নয়, অনলাইন টিভিরও অভাব নেই । রাজধানীর বাইরেও কোনও কোনও উপজেলায় ৪/৫টি অনলাইন টেলিভিশন তৈরি হয়েছে । মাইক্রোফোন হাতে তাদের কর্মীরা ছুটে চলছেন । খবরের খোঁজে ছুটছেন কমই, অধিকাংশই সরকারি দফতরের কর্মকর্তা, কর্মচারী ও সাধারণ মানুষকে হয়রানি, তাদের ভয় দেখানো ও প্রতারণার লক্ষ্য নিয়ে ছুটছেন অর্থ উপার্জনের ধান্দায় । সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রায়ই এমন অনেক সাংবাদিক পরিচয়দানকারীদের দেখা মেলে, যারা একেকজন এক হালি থেকে শুরু করে এক ডজন গণমাধ্যমের সঙ্গে জড়িত । কিন্তু তাদের পেশা ভিন্ন । সাংবাদিকতার নাম সঙ্গে রাখা, প্রতিপত্তির মাত্রা বাড়ানোর জন্য । কিছুদিন আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা থেকে শিশু চুরি করে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগে যে নারী গ্রেফতার হয়ে ছিলেন, তিনি শুধু সরকারি দলেরই নয়, গণমাধ্যমের সঙ্গেও জড়িত । তাকে আটক করার পরে তিনি নাকি সাংবাদিক নেতাদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার দাবি করেছেন । উচ্চারণ করেছেন কারও কারও নাম। রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান সাহেদ সাহেব গ্রেফতার হবার পরেও আমরা এমন নিদর্শন দেখেছি । সাংবাদিকতায় ‘সাংঘাতিক’দের অনুপ্রবেশের পেছনে সাংবাদিক সংগঠনগুলোর ভোট নির্ভরতাকেও দায়ী করেন অনেকে । ভোট ব্যাংক সমৃদ্ধ করতে অফিস সহকারী থেকে রাস্তার হকার, ক্যানভাসার, চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী, ছিঁচকে ছোর, পতিতা, গ- মূর্খ, পুলিশের সোর্স, ফ্লাক্সিলোডের দোকানিকেও সাংবাদিক সংগঠনের সদস্যপদ দেওয়ার অভিযোগও প্রমাণিত। তবে অনিয়ন্ত্রিত অনলাইন পোর্টাল, টিভির কারণে এসব ‘সাংঘাতিক’দের দৌরাত্ম্য এখন ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে । এদের জন্য মুশকিল হয়ে উঠেছে পেশাদার সাংবাদিকদেরও কাজ করা । বর্তমানে শহর বন্দর গ্রামগঞ্জে পেশাদারদের চেয়ে ‘সাংঘাতিক’দেরই রাজত্ব। রাজনৈতিক নেতা, সরকারি কমকর্তা এবং সাধারণ মানুষ এই ‘সাংঘাতিক’দের কাছে জিম্মি । পরিচিত বা মূলধারার পত্রিকা, অনলাইন পোর্টাল বা টেলিভিশনের সাংবাদিকরা তুলসি পাতা, এমন দাবি করার সামর্থ্য নেই । কারণ মাঠ পর্যায় থেকে শুরু করে বার্তা কক্ষে এমন কেউ কেউতো আছেনই । এরাও তৈরি হন শিল্পগোষ্ঠীর স্বার্থ হাসিল করার প্রক্রিয়ায় । সকল পেশার মতো এই পেশাতেই নৈতিক স্খলন ঘটে এমন মানুষ নেই, সে কথাও বলা যাবে না । তারা আছেন, হয়তো থাকবেনও । গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানের নজর রাখতে হবে, তাদের কর্মীরা যেন সাংবাদিকতার চৌকাঠ ডিঙিয়ে সাংঘাতিক না হয়ে উঠেন । একইভাবে অপরাধ জগতের মানুষের সঙ্গেও সখ্য গড়ে তোলার ক্ষেত্রেও সকল স্তরের পেশাজীবী সাংবাদিকদের সতর্ক থাকা দরকার আছে বলে আমি মনে করি । একইভাবে পেশাজীবী সংগঠনগুলোকে ভোট ব্যাংক বাড়াতে এইসব ‘সাংঘাতিক’দের প্রশ্রয় দেওয়া থেকে দূরে থাকার জন্য বিনীত ভাবে অনুরোধ করছি । একই সাথে অনুরোধ করছি প্রকৃত রাজনৈতিক নেতাদের তারা যেন সামান্য সুবিধার জন্য এইসব মৌসুমি কাউয়া নেতাদের প্রশ্রয় না দেন । আর আমার এই অনুরোধটি একটু বিবেচনা করলে অন্তত মৌসুমি কাউয়া নেতা ও ‘সাংঘাতিক’ অনুপ্রবেশে কিছুটা হলেও ভাটা আনা যাবে ।