December 4, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

তিন বিয়ে করা কালীগঞ্জের নবজাতক চোর প্রিয়া খাতুনের পরিচয় কি?

তিন বিয়ে করা কালীগঞ্জের নবজাতক চোর প্রিয়া খাতুনের পরিচয় কি?

তিন বিয়ে করা কালীগঞ্জের নবজাতক চোর প্রিয়া খাতুনের পরিচয় কি?

ঝিনাইদহ-
ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ শহরের সেবা ক্লিনিক এ- ডায়াগনোস্টিক থেকে সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে চুরি হওয়া নবজাতককে ১৬ ঘন্টা পর ঝিনাইদহ র‌্যাব-৬ মঙ্গলবার সকাল ১০ টার দিকে কালীগঞ্জ শহরের নিশ্চিন্তপুর দাসপাড়া এলাকা থেকে নবজাতককে উদ্ধার করা হয়। ঝিনাইদহ র‌্যাব-৬ এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, নবজাতক চোর প্রিয়া খাতুন ওরফে মিনারা খাতুন নিশ্চিন্তপুর দাসপাড়া এলাকার ভাড়াটিয়া মো: জাহাঙ্গীর হোসেন এর স্ত্রী। প্রিয়া খাতুন ওরফে মিনারা খাতুন শহরের নদীপাড়া এলাকার মিরু খন্দকারের মেয়ে। আটক প্রিয়া খাতুন প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে কন্যাশিশু চুরি করার কথা স্বীকার করেছেন। এখানে তারা ভাড়া বাড়িতে বসবাস করে। তারা মূলত ফরিদপুর জেলার বাসিন্দা। এ পর্যন্ত প্রিয়া খাতুনের তিনটি বিয়ে হয়েছে। কিন্তু কোথাও স্থায়িত্ব হয়নি। ১ম বিয়ে হয় শহিদুলের সাথে, ২য় বিয়ে হয় রংপুরের রাসেলের সাথে। এরপর সর্বশেষ ৩য় বিয়ে হয় মধুগঞ্জ বাজারের জাহাঙ্গীরের সাথে। শহরের সেবা ক্লিনিকে খাতুন সিসি টিভি ক্যামেরা না থাকায় নবজাতক উদ্ধারে বেশ বেগ পোহাতে হয় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের। রাতভর অভিযানে নামে পুলিশ ও র‌্যাবের কয়েকটি আভিযানিক দল। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে শহরের নিশ্চিন্তপুর দাসপাড়া এলাকায় প্রিয়া খাতুনের ভাড়াবাসার একটি কক্ষ থেকে উদ্ধার করে র‌্যাব-৬ এর সদস্যরা। প্রিয়া খাতুন ক্লিনিক থেকে বের হয়ে রিক্সাযোগে হেলায় ব্রীজের কাছে পৌছায়। এরপর সেখানে নদীর কুলে একটি গাছের তলায় বসে ফোন দেয় প্রতিবেশি নাসিমা খাতুনকে। নাসিমা খাতুন সেখানে পৌছালে তাকে বলা হয় তার সন্তান প্রসব হয়েছে। এরপর সে বাসায় প্রবেশ করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে এ তথ্য জানিয়েছে। সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে ক্লিনিকের ২০৩ নম্বর কেবিন থেকে নবজাতকটি চুরি হয়।