October 24, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

পীরগঞ্জে কেশবপুরের রাস্তাটি পাকাকরণ না হওয়ায় চরম ভোগান্তিতে এলাকাবাসী

পীরগঞ্জে কেশবপুরের রাস্তাটি পাকাকরণ না হওয়ায় চরম ভোগান্তিতে এলাকাবাসী

পীরগঞ্জে কেশবপুরের রাস্তাটি পাকাকরণ না হওয়ায় চরম ভোগান্তিতে এলাকাবাসী

পীরগঞ্জ (রংপুর) থেকে: রংপুরের পীরগঞ্জে প্রত্যন্ত অঞ্চল পাঁচগাছী ইউনিয়নের কেশবপুর গ্রামে যাতায়াতের একমাত্র রাস্তাটি টানা বর্ষায় ভোগান্তিতে পড়েছে ওই এলাকার হাজারো মানুষ। রংপুরের আঞ্চলিক ভাষায় “ক্যা বাহে, হামার এই আস্তা (রাস্তা) কোনা কি পাকা হবার নয়! চেয়ারম্যান মেম্বর গুল্যা কি হারে গেচি। তারা কোন পাকে পীরগঞ্জ যায়। আকাশ দি উড়ি যায় নাকি!”- বড় আক্ষেপ করেই বললেন ওই এলাকার ফুল মিয়া। এদিকে প্রতিনিয়তই ঘটছে কোন না কোন দূর্ঘটনা। জানা গেছে, বর্ণিত ইউনিয়নের কেশবপুর গ্রামের সাহেব মাস্টারের বাড়ি থেকে সাহাপুর গ্রামের সাঁওতালপাড়া (বাবুরবাড়ি) পর্যন্ত প্রায় ১.৫ কি: মি: রাস্তা সংস্কারের অভাবে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে হাজারো মানুষ। ঝুঁকিপূর্ণ এই রাস্তাটিতে দূর্ঘটনা বেড়েই চলছে। সরে জমিন ঘুরে দেখা গেছে, এনায়েতপুর, আমোদপুর, সাহাপুর, জাহাঙ্গীরাবাদ, কেশবপুরসহ প্রায় ১০/১২টি গ্রামের ২০ থেকে ২৫ হাজার লোকের যাতায়াতের জন্য এক মাত্র রাস্তাটি তাদের যাতায়াতের ভরসা। ভ্যান, ইজিবাইক, নসিমন, অটোভ্যান, অটোরিকশা, সিএনজি, করিমন করে প্রতিনিয়ত এই রাস্তাটি দিয়ে দেড় থেকে দুই হাজার চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা যাতায়াত করে। বর্তমানে রাস্তার দুরাবস্থার কারণে কোনো যানবাহন চলতে পারছে না। বর্ষা মৌসুমে একটু বৃষ্টি হলেই জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয় এবং পানির নিচে তলিয়ে যায়। রাস্তাটি ঝুঁকিপূর্ণ ও জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ায় অনেক পরিবার ছেলে-মেয়েদের স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দেয়ার পরিকল্পনা করছেন। স্থানীয়রা রাস্তাটি দ্রুত সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন। স্থানীয় শিক্ষক আতিকুর রহমান লিটন জানান- ‘শুধু শুনেছি টেন্ডার হয়েছে, তবে কবে কাজ শুরু হবে তা জানি না। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী মশিউর রহমান জানান এমপি মহোদয়ের এখতিয়ারে যে সব রাস্তা বরাদ্দ দিয়েছে সে সব রাস্তার কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। তবে বরাদ্দ পেলে ওই রাস্তা পাকাকরণ করা হবে।