January 26, 2022

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

পীরগঞ্জে খামারীদের প্রণোদনার টাকা আত্মসাত মানববন্ধন বিক্ষোভ ও উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তার কার্যালয় ঘেরাও

পীরগঞ্জে খামারীদের প্রণোদনার টাকা আত্মসাত মানববন্ধন বিক্ষোভ ও উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তার কার্যালয় ঘেরাও

পীরগঞ্জে খামারীদের প্রণোদনার টাকা আত্মসাত মানববন্ধন বিক্ষোভ ও উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তার কার্যালয় ঘেরাও


পীরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি ঃ রংপুরের পীরগঞ্জে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত করোনাকালীন ক্ষতিগ্রস্থ খামারীদের প্রণোদনার টাকা এলডিডিপি প্রকল্পের এলএসপি পদে কর্মরত পীরগঞ্জ সদর ইউনিয়নের সুবিধাভোগী খামারীদের নামে বরাদ্দকৃত অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে উপজেলা প্রাণী সম্পদ কার্যালয় ঘেরাও করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করা হয়েছে। এর আগে ওই খামারীরা পীরগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করে। গতকাল বুধবার দুপুরে পীরগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে খামারীরা মানববন্ধন শেষে উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তার কার্যালয় ঘেরাও ও বিক্ষোভ করে। মানববন্ধনে উপজেলার পীরগঞ্জ সদর ইউনিয়নের মকিমপুর গ্রামের রতন চন্দ্র মহন্তের স্ত্রী খামারী রিক্তা রানী, সুধা চন্দ্র মহন্তের স্ত্রী ধলী রানী, বাজিতপুর গ্রামের আনারুলের স্ত্রী বিউটি বেগম, নঈম উদ্দিনের ছেলে নান্নু মিয়া, নুরুল ইসলামের ছেলে মতিয়ার রহমান, বারাইপাড়া গ্রামের মৃত. আব্দুল ওয়াহাবের স্ত্রী রাহেনা বেগম, মৃত. আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে জোয়াদ আলী, বাদশা মিয়ার ছেলে সুজন মিয়া বক্তব্য রাখেন। বক্তব্যে তারা ক্ষোভ ও দুঃখ প্রকাশ করে বলেন- গত করোণাকালীন সময়ে প্রধানমন্ত্রী পীরগঞ্জের ক্ষতিগ্রস্থ খামারীদের ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার জন্য যে প্রণোদনার টাকা বরাদ্দ দিয়েছিলেন। এতে অনেক খামারীর নাম তালিকা ভুক্ত থাকলেও সে সমস্ত খামারী প্রণোদনার টাকা প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। এলডিডিপি প্রকল্পের দায়িত্বপ্রাপ্ত এলএসপি হাসানুর রহমান হাসান পরিকল্পিত ভাবে উল্লেখিত খামারীদের নামে বরাদ্দকৃত ১০ হাজার থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত প্রণোদনার ওই অর্থ বরাদ্দ দেয় সরকার। তালিকা প্রনয়ণে প্রত্যেক খামারীদের নামের অনুকুলে মোবাইল সীম কার্ড উত্তোলন করে নিজের কাছে রেখে দেন এলএসপি হাসান এবং ওই তালিকা উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা তাজুল ইসলাম এর কাছে দাখিল করেন। রহস্য জনক কারনে ওই তালিকা কোন প্রকার যাচাই বাছাই ছাড়াই অনুমোদন পূর্বক বরাদ্দ প্রদানের জন্য মন্ত্রনালয়ে প্রেরন করেন। যথারীতি খামারীদের নামে প্রনোদনার টাকা বরাদ্দ আসলে উক্ত এলএসপি হাসানুর রহমান হাসান অর্ধশতাধিক খামারীর টাকা কৌশলে তার মোবাইল একাউন্টে পার করে নিয়ে সমুদয় অর্থ পকেটস্থ করেন। পরবর্তীতে এ তথ্য ফাঁস হলে বঞ্চিত খামারীরা তাদের নামে বরাদ্দকৃত টাকা প্রাপ্তির জন্য উপজেলা প্রনীসম্পদ কর্মকর্তা ও এলএসপি হাসানের কাছে কয়েক দফা ধর্না দিয়ে তাদের নামে বরাদ্দকৃত অর্থ না পেয়ে নিরুপায় খামারীরা উপজেলা প্রানী সম্পদ কর্মকর্তার কার্যালয় ঘেরাও, বিক্ষোভ প্রদর্শন ও মানববন্ধন কর্মসূচি শেষে ভূক্তভোগিরা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ তাজুল ইসলামের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। এ ব্যাপারে প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা বলেন- খামারীদের নামে বরাদ্দকৃত অর্থ অত্মসাতের ঘটনায় জড়িত ওই এলএসপি হাসানুরের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।