October 21, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

পুকুর ও মাছ চাষ কোনটাই নেই, তবুও গ্রহণ করছে মাছ চাষের প্রশিক্ষণ

পুকুর ও মাছ চাষ কোনটাই নেই, তবুও গ্রহণ করছে মাছ চাষের প্রশিক্ষণ

পুকুর ও মাছ চাষ কোনটাই নেই, তবুও গ্রহণ করছে মাছ চাষের প্রশিক্ষণ

কিশোরগঞ্জ(নীলফামারী)প্রতিনিধিঃ

পুকুর  না থাকলেও হচ্ছে পুকুর মালিক, মাছ চাষ না করেও হচ্ছে মৎস্য চাষী এ চিত্রটি কিশোরগঞ্জ উপজেলা মৎস্য অধিদপ্তরের। 
পুকুর নেই অথচ মৎস্য চাষ প্রযুক্তি সেবা সম্প্রসারণ প্রকল্পের প্রশিক্ষণ গ্রহণ করছে এমন ক’জনকে প্রশিক্ষণ প্রার্থীরা।
 কিশোরগঞ্জ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে প্রশিক্ষণ নিতে দেখা গেছে। তবে উপজেলা মৎস্য অফিসারের দাবী পুকুর থাক বা না থাক তারা আগামীতে মাছ চাষ করবে এমন উদ্যোক্তা সৃষ্টির জন্য তাদের প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।

উপজেলা মৎস্য অফিস সূত্র জানায়- ইউনিয়ন পর্যায়ে মৎস্য চাষ প্রযুক্তি সেবা সম্প্রসারণ প্রকল্প (২য় পর্যায়), (২য় সংশোধিত) এর আওতায় ১ম/২য় ধাপের আরডি ও এফ এফ দের মৎস্য চাষ বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। প্রথম ব্যাচ প্রশিক্ষণ শুরু হয়েছে। এতে অংশগ্রহণ করেছে ১৮ জন। পরবতর্ীতে আরও ২টি ব্যাচে মোট ৩৬ জন্য প্রশিক্ষণাথর্ী প্রশিক্ষণ গ্রহণ করবে। 
কিশোরীগঞ্জ বহুমুখী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে সামাজিক দূরত্ব না মেনেই চলছে মৎস্য চাষ প্রযুক্তি সেবা সম্প্রসারণ প্রকল্পের এ প্রশিক্ষণ। কার্প মিশ্র চাষ, ঘুলশা/পাবদা/ট্যাংড়া চাষ এবং মনোসেক্স তেলাপিয়া চাষ ব্যবস্থাপনার এ প্রশিক্ষণে পুকুর নেই ও মাছ চাষ করে না এমন ক’জনকে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে দেখা গেছে। অনেকের পুকুর না থাকলেও তারা এ প্রকল্পের প্রশিক্ষণ গ্রহণ করছে।
এদের অনেকের পুকুর নেই ও মাছ চাষ করে না বলে জানা গেছে। অন্যদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রকৃত পুকুরের মালিক ও মাছ চাষী এ প্রশিক্ষণ থেকে বঞ্চিত হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এছাড়া বড়ভিটা ইউনিয়নের মৎস্য চাষী বাচ্চু মিয়া ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন- ভাই আমি প্রকৃত মাছ চাষী হয়েও এ প্রশিক্ষণে আমার নাম রাখা হয়নি। 

পুকুর নেই ও মাছ চাষ করে না এমন ব্যক্তিদের নিয়ে প্রশিক্ষণ চলছে প্রশ্ন করলে তিনি সাংবাদিকদের উপজেলা মৎস্য অফিসার আবুল কাশেম জানান- আরডিদের শুধু পুকুর নয়, ভাল মানের পুকুর থাকতে হবে। অন্যদিকে এফএফদের পুকুর থাক আর না থাক বা মাছ চাষ করে  কিনা সেটা বিষয় নয়। তারা যাতে এ প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে আগামীতে মাছ চাষ করতে উদ্বুদ্ধ হয়।