October 20, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

পেট্রোল দিয়ে পলাশবাড়ী প্রেসক্লাব জ্বালিয়ে দেওয়ার হুমকি!!

পেট্রোল দিয়ে পলাশবাড়ী প্রেসক্লাব জ্বালিয়ে দেওয়ার হুমকি!!

পেট্রোল দিয়ে পলাশবাড়ী প্রেসক্লাব জ্বালিয়ে দেওয়ার হুমকি!!

উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতির ছেলে

গাইবান্ধা ঃ গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলায় ১৯৮২ ইং সালে জেলা পরিষদের জায়গা লিজ নিয়ে ডাক বাংলো মাঠে প্রতিষ্ঠিত হয় পলাশবাড়ী প্রেসক্লাব।
প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সাপ্তাহিক অনড় পত্রিকার সম্পাদক শাহ আলম সরকার ও সাধারণ সম্পাদক রবিউল হোসেন পাতা।
প্রতিষ্ঠান গড়াার পর থেকে একতলা বিশিষ্ট নিজস্ব একটি ভবনে প্রেসক্লাব কার্যক্রম চলমান রয়েছে।এক সময় ১২/১৪ জন সাংবাদিক এই প্রেসক্লাবে থাকলে ও বর্তমানে রয়েছে ৭১ জন সদস্য।
সময়ের ব্যবধানে ১৯৯৪ সালে প্রেসক্লাব থেকে চলে এসে শুধু মাত্র কাগজে কলমে রিপোর্টাস ইউনিটি নামে একটি সাইনবোর্ড তুলে সরকারি বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা আদায় করে সাংবাদিক আবুল কালাম আজাদ।
পরবর্তীতে ২০১২ সালে প্রেসক্লাব পলাশবাড়ী নামে একটি সংগঠন জম্ন হয় এখানে সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন মনজুর কাদির মুকুল ও সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম রতন।
২০১৮ সালে ৩য় প্রেসক্লাব চৌমাথা মোড় পলাশবাড়ী নামে একটি প্রতিষ্ঠান সাইনবোর্ড উত্তোলন করে। এখানে সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন রফিকুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন মাসুদার রহমান মাসুদ।
তিনটি প্রেসক্লাব ও একটি রিপোর্টাস ইউনিটি মোট ৪ টি সংগঠনের সাংবাদিক ঐক্য না থাকায় প্রশাসনিক দপ্তর সহ সাধারণ মানুষ ও বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে যায়। প্রশাসনের পক্ষ থেকে একাধিকবার চেষ্টা করে ও ঐক্যবদ্ধের ব্যাপারে ফলপ্রসূ আলোচনা না হওয়ায় প্রশাসনের উদ্যোগ বারংবার ভেস্তে যায়।
একাদশ জাতীয় সংসদ উপ নির্বাচনে গাইবান্ধা ০৩ পলাশবাড়ী সাদুল্লাপুর আসনে নির্বাচিত হয় বাংলাদেশ কৃষকলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক এ্যাডঃ উম্মে কুলসুম স্মৃতি। তিনি ৪ টি সংগঠনের সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের সাথে দফায় দফায় বৈঠক করে অবশেষে ৩ টি সংগঠন বিলুপ্ত করে সকল সদস্যকে মুলধারার প্রেসক্লাবে অন্তর্ভূক্ত করা হয়। মোট ৭১ জন সাংবাদিক নিয়ে নির্বাচন কমিশন গঠন করে গনতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় একটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে উপজেলা চেয়ারম্যানসহ অফিসার ইনচার্জ নিজেও উপস্থিত ছিলেন ৷
নির্বাচনে রবিউল হোসেন পাতা সভাপতি ও সিরাজুল ইসলাম রতন সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়। অন্যান্য পদে আরো ২৫ জন সদস্য নির্বাচিত হয়।
নবনির্বাচিত কমিটি দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকেই অপসাংবাদিক ছাটাই করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে নেতৃবৃন্দ।