September 21, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

প্রধান শিক্ষক মর্জিয়া বেগমের অবঃ জনিত বিদায় সংবর্ধনা

প্রধান শিক্ষক মর্জিয়া বেগমের অবঃ জনিত বিদায় সংবর্ধনা

প্রধান শিক্ষক মর্জিয়া বেগমের অবঃ জনিত বিদায় সংবর্ধনা

এ.এস.লিমন,রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ
বিদায় একটি চিরন্তন সত্য। মানুষ এই পৃথিবীতে আসে, পৃথিবীকে ভালোবাসে,মায়ায় জড়িয়ে কাঁদে হাসে,কেউ এসে দাঁড়ায় পাশে,তারপর বিদায় নিলে সবাই শোকে ভাসে। তবে এই চিরবিদায় ছাড়াও নানা রকম বিদায় আছে। ক্ষণিক দেখার পর একা হওয়ার বিদায়, প্রিয়জনের মন থেকে বিদায়, কর্মজীবন শেষে বিদায় ইত্যাদি। এই প্রতিটি বিদায়ের পেছনেই কিছু স্মৃতি থাকে, কিছু কথা থাকে। প্রিয়জনের মন থেকে বিদায় হলে দুঃখ, কষ্ট আর যন্ত্রণা হয় সঙ্গী। আর চিরবিদায় হলেও অনেকের কীর্তিকর্ম তাকে বাঁচিয়ে রাখে।
এই বিদায় নিয়ে অনেক গল্পও রয়েছে, বিশেষ করে বিদায় সংবর্ধনা। প্রতিটি মানুষেরই কর্মজীবনে যাঁদের সঙ্গে তিনি কাজ করেছেন তাঁদের সঙ্গে মজার মজার স্মৃতি যেমন রয়েছে, তেমনি অনেক তিক্ত অভিজ্ঞতাও রয়েছে। তেমনি এক ব্যক্তির কর্মজীবন শেষে কর্মস্থল থেকে বিদায় নেওয়া উপলক্ষে রাজারহাট উপজেলায় বিদায় সংবর্ধনার অনু্ষ্ঠিত হয়েছে।
৪ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টায় চাকিপশার তালুক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষকবৃন্দের আয়োজনে বিদ্যালয় মাঠে বিদায় সংবর্ধনার মঞ্চে বিদায়ী অতিথি, প্রধান অতিথি,বিশেষ অতিথি,শিক্ষা অফিসার,বিভিন্ন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক,সহকারি শিক্ষক,অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ, অধ্যাপক, প্রভাষকসহ ওই বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষকবৃন্দ বসে আছেন।
ঠিক সেই সময় সহকারি শিক্ষক ও রাজারহাট বিডি ডট কম এর সহ -সম্পাদক আসাদুজ্জামান রতনের সঞ্চালনায় ও চাকিপশার তালুক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পিটিএ এর সভাপতি মোঃ সোলেমান আলীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন- সরকারি এম আই ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ শফিকুল ইসলাম রানা। 
এ সময় উপস্থতিত ছিলেন- সরকারি এম আই ডিগ্রী কলেজের উপাধ্যক্ষ সাজেদুর রহমান মন্ডল চাঁদ, বিভাগী প্রধান (বাংলা বিভাগ) অধ্যাপক রেজাউল করিম,উপজেলা প্রাথমিক সহকারি শিক্ষা অফিসার আবু রায়হান, আবু সালেক বুলবুল,প্রভাষক হাবিবুর রহমান,মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুর ইসলাম প্রমুখ।
পরিশেষে বিদায়ী অতিথি মর্জিয়া বেগম কান্নাবিজড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘আমার বিদায়ে সকলের কষ্ট দেখে আমারও চোখের পাতা ভারী হয়ে আসছে। কর্মজীবন থেকে বিদায়ের স্মৃতি কখনো সুখের, কখনো দুঃখের। নানা স্মৃতি বুকে নিয়ে এই বিদায় মনে করিয়ে দেয়, মানুষের জীবন খুবই ছোট। ‘আমি দুঃখিত, আমি আর কিছু বলতে পারব নাথ, বলেই ডুকরে কেঁদে উঠলেন।শেষে বিভিন্ন উপহার সামগ্রী তাঁর হাতে তুলে দেন।