December 5, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

ফুলবাড়ীতে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও উপজেলা কমিটির মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মোঃ আব্দুল আজিজ এর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র॥

ফুলবাড়ীতে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও উপজেলা কমিটির মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মোঃ আব্দুল আজিজ এর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র॥

ফুলবাড়ীকে জেলা বাস্তবায়ন ঘোষনার দাবী॥

ফুলবাড়ী, দিনাজপুর প্রতিনিধি
দিনাজপুরের ফুলবাড়ীকে জেলা বাস্তবায়ন ঘোষনার দাবী। মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর হস্তক্ষেক কামনা করেছেন ৬ উপজেলা বাসী। এই এলাকার মানুষ দূর্ভোগের কারণে এই এলাকায় জেলা বাস্তবায়ন চায়। দিনাজপুর জেলা পূর্ব অঞ্চলের ৬টি উপজেলার কেন্দ্র স্থল ফুলাবাড়ী। ফুলবাড়ীকে জেলা বাস্তবায়ন করার জন্য ৬টি উপজেলার সচেতন মানুষ দীর্ঘদিন ধরে প্রধান মন্ত্রীর দৃষ্টি আর্কষন করেছেন। যে কারণে ফুলবাড়ীকে জেলা বাস্তবায়ন কারা দাবী উঠেছে তা হচ্ছে ৬টি উপজেলার ভৌগলিক সীমা রেখা পরিবেশের উন্নয়নের কথা চিন্তা করে ১৯৭৮ সালের ৯ই মে ফুলবাড়ী সরকারি কলেজ মাঠে এক বিশাল জনসেবায় তৎকালীন রাষ্ট্রপতি ফুলবাড়ীকে মহকুমায় উন্নতি করার চূড়ান্ত ঘোষনা দেন। যাহার স্মারক নং-১৭/১৭(২)পোপ/৭৯-৬২৮। তারিখ ১৪-০৬-৯৭৯ এর গেজেট নটিফিকেশনের মাধ্যমে প্রকাশিত হয়। কিন্তু পর্বতীতে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি আততায়ীর হাতে নির্মম ভাবে নিহত হন ও রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের কারণে তাঁর দেওয়া ঘোষনার বাস্তবায়নে রূপ নেয় নি। তৎকালীন রাষ্ট্রপতির ইচ্ছাকে বাস্তবায়ন ককরার মধ্যদিয়ে বর্তমান সরকার তাঁর আত্মার প্রতি যথাযথ সম্মান প্রদর্শন করবেন বলে অত্র অঞ্চলের ১০ লক্ষ জনগন এ সরকারের প্রতিশ্রুতি বিশ্বাস করে। ফুলবাড়ী জেলা বাস্তবায়নের একটি শক্তিশালী নাগরিক ও জেলা বাস্তবায়ন কমিটি গঠন হয়েছিল। তৎকালীন পৌর মেয়র শাহাজাহান আলী সরকার পুতু সেই কমিটির আহব্বায়ক। এই কমিটি দীর্ঘদিন ধরে জেলা বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে ক্রমান্বয়ে আন্দোলন করে যাচ্ছে। ফুলবাড়ী জেলা বাস্তবায়ন যে কারণে জোরালো দাবী উঠেছে বিভিন্ন মহলে তা হচ্ছে ঘোড়াঘাট, নবাবগঞ্জ, হাকিমপুর, বিরামপুর, পাবর্তীপুর, ও ফুলবাড়ী এই ৬টি উপজেলার কেন্দ্র স্থল ফুলবাড়ী। ৬টি উপজেলার সমন্বয়ে ফুলবাড়ীতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের কার্যালয় স্থাপিত, বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি, কঠিন শিলা খনি প্রকল্প, ৫২৫ মেগাওয়াট কয়লা ভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র, বাংলাদেশের অন্যতম বিনেদন পর্যটন কেন্দ্র স্বপ্নপূরীর প্রবেশ দ্বার, শতাধিক সরকারি বে-সরকারি এনজিও অফিস, দুটি সরকারি কলেজ, ফুলবাড়ী ২৯ বিজিবি’র সদরদপ্তর, সড়ক ও জনপথ বিভাগের পরিদর্শন কার্যালয়, ৬টি উপজেলার আয়কর অফিস, উপশহর, টেলিযোগাযোগের উন্নতিতে ফুলবাড়ীতে মাইক্রোওয়েভ স্টেশন (টিএন্ডটি), পানি উন্নয়ন বোডের আঞ্চলিক অফিস, ক্ষুদ্র ও মাঝারি ৫০-৬০ শিল্প প্রতিষ্ঠান, একটি কোল্ড ষ্টোর, ৬টি পেট্রল পাম্প, দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২, দূযোগ মোকাবেলায় ফুলবাড়ীতে একটি হেলিপেট স্থাপিত, রেল যোগাযোগের ক্ষেত্রে ফুলবাড়ী একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান। এছাড়ও ফুলবাড়ী উপজেলার সাথে ৬টি উপজেলার যাতায়াতের সুবিধার্থে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি হয়েছে। ফুলবাড়ীকে জেলা করার সমস্ত আয়োজন সম্পূর্ণ হলেও রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের কারণে তা আজও বাস্তবায়িত হয়নি। ঘোড়াঘাট থেকে দিনাজপুর জেলায় এই এলাকার মানুষকে বিভিন্ন কাজকর্ম করতে যেতে চরম দূর্ভোগের শিকার হতে হয়। অর্থনৈতিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। সবকিছু বিবেচনা করে ৬ উপজেলার মানুষ বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জেলা বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে নেক দৃষ্টি কামনা করেছেন।