October 20, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

ফুলবাড়ী পৌরসভায় মেয়রের সংবাদ সম্মেলন॥

ফুলবাড়ী পৌরসভায় মেয়রের সংবাদ সম্মেলন॥

ফুলবাড়ী পৌরসভায় মেয়রের সংবাদ সম্মেলন॥

ফুলবাড়ী দিনাজপুর, প্রতিনিধি
দিনাজপুরের ফুলবাড়ী পৌরসভার সভা কক্ষে মেয়র মুরতুজা সরকার মানিক এর সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত॥শনিবার সকাল সাড়ে ১১টায় ফুলবাড়ী পৌরসভার সভাকক্ষে পৌরসভার মেয়র মুরতুজা সরকার মানিক এর ১০ বছরের উন্নয়নমূল কাজের চিত্র তুলে ধরে সাংবাদিকদের নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলন করেন। ফুলবাড়ী পৌরসভার মেয়র মুরতুজা সরকার মানিক সংবাদ সম্মেলনে বলেন ২০১১ সালে সতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রথম বারের মত ফুলবাড়ী পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হয় এবং ২০১৫ সালে ২য় বার সতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মেয়র নির্বাচিত হই। আমার ১০ বছর পৌরসভার দায়িত্ব পালনে উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ডের তথ্য সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আপনাদের সামনে তুলে ধরছি ২০১১ সালে নির্বাচন হওয়ার পূর্বের ১ কোটি ২২ লক্ষ ৮৫ হাজার ৬ শত ৩৬ টাকা বকেয়া থাকা অবস্থায় আমি দায়িত্ব ভার গ্রহণ করি। বর্তমানে ৩ কোটি ৮৪ লক্ষ ৭৬ হাজার ৪ শত ৭ টাকা বকেয়া রেখে দায়িত্ব হস্তান্তর করবেন। ফুলবাড়ী পৌরসভা তৃতীয় শ্রেণিতে ছিল। আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর পৌরসভার আয় বৃদ্ধি করে পৌরসভাটিকে ১ম শ্রেণিতে উন্নিত করি এবং পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা গ্রহণ করে নাগরিক সেবা বৃদ্ধি ও অবকাঠামো উন্নয়নের উদ্যোগ নেই। উদ্যোগ সমূহের মধ্যে ছিল ১০ বছরে পৌরকর (হোল্ডিং ট্যাক্স), ব্যবসা লাইসেন্স, জন্ম-মৃতু নিবন্ধন কম্পিউটারাইজ করি।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মেয়র মুরতুজা সরকার মানিক বলেন, সড়ক ও জনপদ বিভাগ রাস্তার কাজ করতে গিয়ে ভূ-গর্ভের নিচের পানির লাইনের অনেক জায়গায় পাইপ ফেটে ফেলেন সে জন্য নতুন বরাদ্দ আসলে পানির লাইনের কাজ সচল হবে, সে ব্যবস্থ করা হয়েছে। হাট বাজারের বকেয়া আদায়ের যে বিষয়টি রয়েছে তা অডিট অপত্তি রয়েছে। পর্বতীতে তা নিষ্পত্তি হবে। অনেক পৌরসভায় কর্মকর্তা কর্মচারীদের ১৪ মাস ও ৩৬ মাসের বেতন বকেয়া রয়েছে। কিন্তু পৌরসভার আয়ের উপরে কর্মকর্তা কর্মচারীদের বেতন প্রদান করা হয়। সরকারি কোন বরাদ্দ পাওয়া যায় না।
পৌরসভাকে মার্চ ২০১৫ ইং সালে খ শ্রেণি এবং সেপ্টেম্বর ২০১৫ ইং সালে ক শ্রেণিতে উন্নিত করি। ফুলবাড়ী পৌরসভাকে আধুনিক করার লক্ষে কর্মকর্তা/কর্মচারীর প্রশিক্ষণ প্রদান সহ সবরকম ব্যবস্থ নেই। অফিসের বিভিন্ন কর্মকান্ডের সচ্ছতা ও জবাব দিহিতা বৃদ্ধির লক্ষে বিভিন্ন কমিটি গঠন যেমন: ওয়ার্ড কমিটি, শহর সমন্বয় কমিটি ও স্থায়ী কমিটির পরামর্শের মাধ্যমে পৌরসভা পরিচালনা করি। আজ আপনাদের সাথে কথা বলার মধ্য দিয়ে ফুলবাড়ী পৌরসভার মেয়র হিসেবে আমার ১০ বছরের দায়িত্বের ইতি টানছি। এবার নির্বচনের পূর্বের চেয়ে বেশি ভোট পেয়েও বিজয় লাভ করতে পারিনি। দায়িত্বে থাকা কালীন সময় ফুলবাড়ী পৌরসভাকে নিয়ে সবসময় নতুন করার চেষ্টা করেছি। সম্মানিত নব-নির্বাচিত মেয়র আলহাজ্ব মাহামুদ আলম লিটন পৌরসভার বিষয়ে যদি কোন পরামর্শ নিতে প্রয়োজন মনে করেন তাহলে আমি তার পাশে থেকে ফুলবাড়ী পৌরসভার সার্থে সবধরনের সহযোগীতা করব। আমার জন্য সকলে দোয়া করবেন।