October 23, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

কৃষি গবেষকদের প্রণোদনা দিতে চাই: প্রধানমন্ত্রী

কৃষি গবেষকদের প্রণোদনা দিতে চাই: প্রধানমন্ত্রী

কৃষি গবেষকদের প্রণোদনা দিতে চাই: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, কৃষি উৎপাদন বাড়াতে নতুন নতুন প্রযুক্তি ও জাত আবিষ্কারের বিকল্প নেই। এজন্য গবেষণা অধিকতর গুরুত্বপূর্ণ। তাই আমরা গবেষকদের প্রণোদনা দিতে চাই। প্রণোদনা দেয়ার উপায় বাতলে দিতে কৃষিবিজ্ঞানীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল কর্তৃক প্রকাশিত ‘১০০ কৃষি প্রযুক্তি এটলাস’র মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে যুক্ত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা কৃষিকে গুরুত্ব দিচ্ছি। এ জন্য ৭০ হাজার যন্ত্রপাতি কৃষকদের দেয়া হয়েছে। বিশাল অংকের টাকাও দিয়েছি। যখন যা প্রয়োজন দিয়েছি, কৃষি ও কৃষকের জন্য যা লাগবে দেব।

তিনি বলেন, নতুন নতুন কৃষিপণ্য উৎপাদন, প্রক্রিয়াকরণ ও বাজারজাত করে নিজেদের বাজার ধরে রাখতে হবে। স্বল্পখরচে বেশি ফলদায়ক পণ্য আবিষ্কার ও চাষাবাদে মনোযোগী হতে হবে। এজন্য গবেষণাটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। গবেষণা বাড়াতে বিজ্ঞানীদের প্রণোদনা দিতে চাই। আপনারা এ বিষয়ে পরামর্শ দেবেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, খাদ্য নিরাপত্তার জন্য কৃষি গুরুত্বপূর্ণ। আপনাদের (বিজ্ঞানী) উদ্ভাবনের জন্য ধন্যবাদ। আপনাদের উদ্ভাবনের অতিগুরুত্বপূর্ণ ১০০টি জাত নিয়ে এটলাস প্রকাশ করেছেন, একটা ভালো উদ্যোগ।

শেখ হাসিনা বলেন, আজকের কৃষিক্ষেত্রে যে উন্নয়ন, তার শুরুটা জাতির পিতাই করে গেছেন। বীজ তিনিই বপন করেছেন। আমরা ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসেও সে কাজ চলমান রেখেছি। এখনও সে কাজ করে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, করোনায় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন শ্রেণির মানুষকে আমরা সাহায্য দিয়েছি। করোনায় কৃষক যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সেজন্য দলীয় কর্মীদের নির্দেশ দিয়ে ধান কাটিয়ে বাড়িতে তোলারও ব্যবস্থা করেছি।

প্রধানমন্ত্রী তার সরকারের সময়ে শতভাগ বিদ্যুৎ প্রদান কর্মসূচি বাস্তবায়নের কথা পুনর্ব্যক্ত করে বলেন, গ্রিড লাইন যতদূর আছে সেখানে কিন্তু আমরা শতভাগ বিদ্যুৎ দিয়েছি। কিন্তু কিছু কিছু দ্বীপাঞ্চল বা দূরবর্তী অঞ্চল আছে, সেখানে সোলার প্যানেল দিচ্ছি, সঙ্গে সঙ্গে সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমেও তাদেরকে বিদ্যুৎ দিয়ে যাচ্ছি। কাজেই প্রতিটি ঘর আলোকিত হবে। আর প্রতিটি গৃহহীন ভূমিহীন মানুষ গৃহ পাবে। মুজিববর্ষে অনেক অনুষ্ঠান আমরা করতে চেয়েছিলাম, পারিনি। কিন্তু এটাই আমাদের সবথেকে বড় কর্মসূচি।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র প্রান্তে সভাপতিত্ব করেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। এছাড়া আরো বক্তব্য রাখেন কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মতিয়া চৌধুরী, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, কৃষি সচিব মেসবাহুল ইসলাম ও বিএআরসি’র নির্বাহী চেয়ারম্যান কৃষিবিদ ড. শেখ মোহাম্মদ বখতিয়ার।