January 25, 2022

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

যেকোন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বা ধর্মীয় উৎসবে কোন প্রকার বিশৃংখলা কোনভাবেই বরদাস্ত করা হবে না

যেকোন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বা ধর্মীয় উৎসবে কোন প্রকার বিশৃংখলা কোনভাবেই বরদাস্ত করা হবে না

যেকোন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বা ধর্মীয় উৎসবে কোন প্রকার বিশৃংখলা কোনভাবেই বরদাস্ত করা হবে না

খায়রুন নাহার বহ্নি, বীরগঞ্জ(দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি বলেছেন, বৈশ্বিক করোনা মহামারী পরিস্থিতিতেও একমাত্র বাংলাদেশেই সকল ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলো চালু ছিলো এবং আছে। পাশাপাশি যে কোন উৎসবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার উপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি। আর যেকোন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বা ধর্মীয় উৎসবে কোন প্রকার বিশৃংখলা কোনভাবেই বরদাস্ত করা হবে না।
গতকাল শুক্রবার দুপুরে দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলার কান্তজিউ মন্দির প্রাঙ্গনে দিনাজপুর রাজ দেবোত্তর এষ্টেট-এর দেয়া সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, একটি অসাম্প্রদায়িক চেতনা নিয়ে ৩০ লাখ শহীদের বিনিময়ে এই দেশ স্বাধীন হয়েছে। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর এদেশে ধর্ম নিয়ে রাজনীতি শুরু হয়। ধর্মকে ক্ষমতায় থাকার হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে জিয়া-খালেদা-এরশাদ। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকন্যা দেশরতœ শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর বাংলাদেশ আবার অসাম্প্রদায়িক চেতনার রাষ্ট্রে পরিনত হয়েছে। সকল ধর্মের মানুষ তাদের নিজ নিজ ধর্ম পালনের অধিকার ভোগ করছে। অনুষ্ঠানে কান্তজীউ মন্দিরের পাশে একটি হাসপাতাল নির্মানে সহায়তার আশ্বাস দেন তিনি।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ হিন্দু কল্যান ট্রাস্টের সহ-সভাপতি মনোরঞ্জন শীল গোপাল বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর কান্তজীউ মন্দিরকে ঘিরে প্রায় ৪৫ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। ঐতিহাসিক এই মন্দিরকে ঘিরে আকর্ষনীয় পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার কাজ দ্রুত এগিয়ে চলেছে বর্তমান সরকারের নেতৃত্বে। তিনি বলেন, কান্তজীউ মন্দির শুধু সনাতন ধর্মাবলম্বীদের তীর্থ স্থান নয়, সকল ধর্মের মানুষের মহামিলন কেন্দ্রে পরিনত হয়েছে। এই রাস উৎসবই তার প্রমাণ।
দিনাজপুরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ বারিউল করিম খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, দিনাজপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আজিজুল ইমাম চৌধুরী, কাহারোল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মনিরুল হাসান, দিনাজপুর জেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি ও দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বরূপ বক্সী বাচ্চু, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারন সম্পাদক উত্তম কুমার রায় প্রমুখ। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, রাজ দেবোত্তর এস্টেট-এর এজেন্ট রনজিৎ সিংহ। অনুষ্ঠানে কান্তজীউ মন্দিরে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা স্থাপনের জন্য একটি বিশাল মনিটর প্রদান করেন নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি।
এর আগে কান্তজিউ মন্দির চত্বরে দিনাজপুর নাগরিক উদ্যোগের আয়োজনে এবং আব্দুর রৌফ ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় ম্যারাথন প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরন করেন নৌ পরিনহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল। অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী সমাজে মাদক নির্মুলে এ ধরনের প্রতিযোগিতা আয়োজনে আয়োজকদের ধন্যবাদ জানান।
নাগরিক উদ্যোগ-এর সভাপতি আবুল কালাম আজাদ এর সভাপতিত্বে পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, দিনাজপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুল ইমাম চৌধুরী, কাহারোল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মনিরুল হাসান প্রমুখ।
প্রতিযোগিতায় পুরুষদের মধ্যে প্রথম হন দিনাজপুরের বিরল উপজেলার আল আমিন এবং মেয়েদের মধ্যে প্রথম হন পাবনার সামিয়া পারভীন।
“এসো দৌড়াই আলোর পথে” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে দিনাজপুর শহর থেকে কাহারোল উপজেলা কান্তজিউ মন্দির প্রাঙ্গন পর্যন্ত ২১ কিলোমিটার এই ম্যারাথন দৌড় প্রতিযোগিতায় অংশ নেন সারাদেশের দেড় শতাধিক প্রতিযোগী।