September 21, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

রংপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের প্রস্তাবিত কমিটির তালিকা প্রকাশ, তৃণমূলে ক্ষোভ

রংপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের প্রস্তাবিত কমিটির তালিকা প্রকাশ, তৃণমূলে ক্ষোভ

রংপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের প্রস্তাবিত কমিটির তালিকা প্রকাশ, তৃণমূলে ক্ষোভ

স্টাফ রিপোর্টার॥
রংপুরে নেতাকর্মীদের চাঙ্গা করতে দ্রুত কমিটি করার উদ্যাগ নিয়েছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দল। তারই ধারাবাহিকতায় বিএনপির অঙ্গ সংগঠনটির কেন্দ্রীয় নেতারা ইতিমধ্যে আগ্রহী প্রার্থীদের তথ্য সংগ্রহ ও সাক্ষাতকারও নিয়েছে। এরই মধ্যে কেন্দ্রীয় কমিটি ও রংপুর বিভাগীয় টিম একটি প্রস্তাবিত কমিটির তালিকা প্রকাশ করেছে। সেই তালিকা প্রকাশের পরেই তৃলমূল পর্যায়ে চরম ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। তৃলমূলের নেতাকর্মীরা প্রস্তাবিত কমিটি বাতিলেরও দাবি জানিয়েছেন। সেই সাথে সাবেক ও বর্তমান ছাত্রদলের নেতাদের মূল্যায়নের দাবিও জানানো হয়।
দলীয় সূত্র জানায়, রংপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের কার্যক্রম দীর্ঘদিন ধরে ঝিমিয়ে পড়ায় কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশে রংপুর বিভাগীয় টিমের নেতারা স্বেচ্ছাসেবক দলের রংপুর জেলা কমিটি গঠনের তৎপরতা শুরু করেন। সেই ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি রংপুর জেলার একটি প্রস্তাবিত কমিটির তালিকা প্রকাশ করা হয়। তালিকা প্রকাশের পরেই তৃণমূল নেতাকর্মীদের মাছে চরম ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দেয়। তারা প্রস্তাবিত জেলা কমিটির আহবায়কসহ কয়েকজন নেতার বিরুদ্ধে মাদক সেবন, অর্থ কেলেংকারীসহ নানা অভিযোগ তুলেন।
তৃণমূলের নেতাকর্মীরা বলেন, প্রস্তাবিত রংপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক হিসাবে যার নাম তালিকায় আছে সেই মোস্তাফিজুর রহমান বিপু একজন মাতাল প্রকৃতির মানুষ। সে নিয়মিত মাদক গ্রহণ করেন। তার অসদাচরণে নেতাকর্মীরা ক্ষুদ্ধ। সেই সাথে বিপু বর্তমান মহানগর কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি ও মহানগর বিএনপি’র সহ-প্রচার সম্পাদক। এছাড়াও জাসাসসহ বিএনপি’র একাধিক সংগঠনের পদে রয়েছেন। কিভাবে এক ব্যক্তির একাধিক পদে থাকে এটা বোধ্যগম্য নয়। তাছাড়া বিপু’র বিরুদ্ধে পদ পদবী পাইয়ে দেয়ার নাম করে অর্থ আদায়েরও অভিযোগ রয়েছে। তাকে জেলা কমিটির আহবায়ক করা ঠিক হয়নি বলে জানান তৃণমূল নেতাকর্মীরা।
এছাড়াও ১ নম্বর যুগ্ম আহবায়ক ময়েন উদ্দিন বিগত রংপুর মহানগর বিএনপি’র কমিটির সহ-প্রচার সম্পাদক ছিলেন। বর্তমানে ২০ নম্বর ওযার্ড বিএনপি’র নেতা ও জেলা তাঁতী দলের যুগ্ম আহবায়ক। আরেক যুগ্ম আহবায়ক শাহ এসএম উজ্জল বর্তমান মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ- সভাপতি, যুগ্ম আহবায়ক আতিয়ার রহমান সদর কমিটির সাধারণ সম্পাদক, ফজলুল হক ফজলু ও নাদিম মোস্তফা বর্তমানে মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্বে রয়েছেন। ৭, ৮ ও ৯ নম্বর যুগ্ম আহবায়ক করা হয়েছে জেলা ছাত্রদলের তিননেতাকে। তারা হলেন আব্দুল্লাহ আল ইমরান সুজন, মুনতাসির মামুন মুন্না ও এ্যাপলো চৌধুরী। আরেক যুগ্ম আহবায়ক মারুফ হোসেন চৌধুরীকে রাজনীতিতে কেউই চেনে না।
সদস্য সচিব হিসাবে তালিকায় যার নাম রয়েছে সেই আবু সাঈদ আখতারুজ্জামান তিতু দীর্ঘদিন ধরে রাজনীতির বাহিরে রয়েছেন। দলীয় কোন কর্মকান্ডে তার অংশগ্রহণ নেই বললেই চলে। তারা তিনি রংপুরের বহিরাগত। কারণ তিনি লালমনিরহাট হাতিবান্ধা উপজেলার বাসিন্দা। সেখানেই তিনি অবস্থান করেন।
জেলার বিভিন্ন উপজেলার স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, রংপুর জেলা ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সর্বশেষ কমিটি গঠন হয় ২০১৮ সালের ৬ জুন। ইতিমধ্যে রংপুর মহানগর শাখার পূর্নাঙ্গ কমিটি হলেও স্থবির হয়ে পড়েছে জেলার কার্যক্রম। দলীয় প্রোগ্রামে জেলার সভাপতি শহিদুল ইসলাম লিটন, সিনিয়র-সহ-সভাপতি শাহিনুর রহমান শাহিনছাড়া জেলা পর্যায়ের আর উল্লেখ্যযোগ্য কাউকে দেখা যায়নি। কমিটি ঘোষণার পর থেকে সাধারণ সম্পাদক ও সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর মুনতাসির শামীম লাইকো অনুপস্থিত। তিনি দলের কোন কার্যক্রমে অংশ নেন না। এর ফলে নুতুন করে জেলা কমিটি গঠনের দাবি উঠেছে তৃণমুল পর্যায়ে। সেই দাবির প্রতি সমর্থন জানিয়ে কেন্দ্র নতুন করে জেলা কমিটি গঠনের উদ্যাগ নেয়।
উপজেলা পর্যায়ের নেতাকর্মীরা জানান, রংপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের কার্যক্রমকে গতিশীল ও শক্তিশালী করতে সৎ, দক্ষ, ত্যাগী নেতাদের গুরুত্বপূর্ণ পদ দিয়ে মূল্যায়ন করতে হবে। সেই সাথে ছাত্রদলের যারা বিবাহিত, বয়সের কারণে বাদ পড়েছেন কিংবা ছাত্রদল থেকে স্বেচ্ছাসেবক দল করতে আগ্রহী তাদের শীর্ষ দুই পদ দেয়ার দাবি জানান। কারণ ছাত্রদল থেকে উঠে আসা নেতৃত্বের সম্বনয়ে জেলা গঠন করা হলে তা হবে যুগান্তকারি পদক্ষেপ। এর ফলে জেলা কমিটি শক্তিশালী হবে। তারা ছাত্রদলের বর্তমান ও সাবেক নেতাকর্মীর সমন্বয়ে কমিটি করার জন্য কেন্দ্রীয় নেতবৃন্দের প্রতি আহব্বান জানান।
একটি নির্ভরযোগ্য সুত্র জানিয়েছে, যে কোনো দিন জেলা কমিটি ঘোষণা দেয়া হবে। ইতিমধ্যেই রংপুর বিভাগীয় টিমের নেতৃবৃন্দসহ জেলার বেশ কয়েকজন পদ প্রত্যাশীরা ঢাকায় আবস্থান করছেন। তারা পদ পেতে কেন্দ্রীয় নেতাদের দারস্থ হচ্ছেন। কেউ কেউ লবিং এ ব্যস্ত সময় পার করছেন।
তবে দলীয় তৃণমূল নেতাকর্মীরা আহবায়ক হিসাবে বর্তমান কমিটির সভাপতি শহিদুল ইসলাম লিটন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক আকতারুজ্জামান তিতু, বর্তমান কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি প্রভাষক শাহিনুর রহমান শাহিন, জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মাহবুব হোসেন সুমনসহ এই চার মধ্যে যে কাউকে দায়িত্ব দেয়ার দাবি জানান।
অন্যদিকে সদস্য সচিব হিসাবে জেলা ছাত্রদলের বর্তমান কমিটির সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল ইমরান সুজন, জেলা ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম শহিদ ও বর্তমান জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুনতাসির মামুন মুন্না, প্রচার সম্পাদক এ্যাপোলো চৌধুরীর মধ্য থেকে যাকে দক্ষ, যোগ্য, ত্যাগী ও সাংগঠনিক মনে হবে তাকে দায়িত্ব দেয়ার দাবি জানান।
এদিকে রংপুর জেলা কমিটিতে সভাপতি-সম্পাদক অথবা আহবায়ক-সদস্য সচিবসহ গুরুত্বপূর্ণ পদে কারা আসছেন তা নিয়ে চলছে তৃণমূল নেতাকর্মীদের আলোচনা-সমালোচনা। এ ছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সম্ভাব্য পদবিধারীদের নিয়ে তৃণমূল নেতাকর্মী ও অনুসারীদের ব্যাপক সরমগম উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে।