October 21, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

অনলাইন গেমসের ভয়াল থাবা গ্রাস করছে নতুন প্রজন্মকে এবং বিনষ্ট করছে নৈতিক ও সামাজিক মূল্যবোধ।

অনলাইন গেমসের ভয়াল থাবা গ্রাস করছে নতুন প্রজন্মকে এবং বিনষ্ট করছে নৈতিক ও সামাজিক মূল্যবোধ।

অনলাইন গেমসের ভয়াল থাবা গ্রাস করছে নতুন প্রজন্মকে এবং বিনষ্ট করছে নৈতিক ও সামাজিক মূল্যবোধ।

গাইবান্ধা ঃ বৈশ্বিক করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ও আক্রমনে পুরো পৃথিবী আতংকিত এবং মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে। বহুদিন ধরে লকডাউন চলছে আমাদের দেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ থাকার ফলে সামাজিক ও নৈতিক অবক্ষয় প্রবলভাবে নেমে এসেছে দেশ ও সমাজের যুব সমাজে।
চটইএ,ঋৎবব ঋরৎব মতো গেমস এর ভয়াবহ নেশায় জর্জরিত ও নেশাগ্রস্ত পুরো যুব সমাজ এবং ঞরশঃড়শ,ষরশবব রোষানলে অল্প বয়সের যুবক-যুবতী নিজেদেরকে প্রদর্শন করছে অশ্লীল ভঙ্গিতে। ভয়াবহ এসব অনলাইন মিডিয়া ও গেমস কেড়ে নিচ্ছে মেধাশক্তি এবং নৈতিকতা। এছাড়াও বিভিন্ন নেশায় জড়িয়ে পড়ছে প্রতিভাবান কোমলমতি অল্প বয়সী ছেলে-মেয়ে।
আধুনিকতার ভয়াবহ কুফলের প্রভাবে শিশু,যুবক-যুবতীদের একটি বড় অংশ জড়িয়ে পড়ছে বাল্যবিবাহ,অবৈধ সম্পর্ক,হানাহানি-মারামারির মতো নানা ধরনের অপরাধে। অভিভাবক এবং এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সাথে ভালো আচরণ তো দূরের কথা,দেখা যায় উদ্ভট ও বেপরোয়া আচরণ করতে। যা পরবর্তী সময়গুলোতে সমাজে ব্যাপক ভয়াল রুপ হিসেবে নেমে আসবে। উত্তি বয়সের এসব শিক্ষার্থী হরহামেশাই নিজেকে জড়িয়ে নিচ্ছে সমাজবিরোধী নানা কাজকর্মে।
একসময়ের যে সবুজ মাঠগুলো সজ্জিত থাকতো নানা বয়সী ছেলে-মেয়েদের পদচারণায়,তা আজ পড়ে থাকে শূন্য হয়ে আধুনিক বিশ্বের অনলাইনের কুফল প্রভাবে।
দর্শকের সারি আর উপস্থিত বিনোদন,প্রাণখোলা আনন্দ আজ যেন বহু অতীত।
অনলাইনের এ বন্ধ অন্ধকার জগতের বেড়াজাল হতে যুব সমাজকে বের করে সবুজ মাঠে ফিরিয়ে না আনলে শারীরিক ও মানসিক বিপর্যয় কঠিনভাবে বিপর্যস্ত করবে এবং সমাজে দারুণ অবক্ষয় নেমে আসবে ভয়াবহ রুপে।
প্রতিটি অভিভাবক এবং সমাজের ক্ষমতাসীন ও গন্যমাণ্য ব্যক্তিবর্গ এসব বিষয়ের একটা সুষ্ঠু সমাধান ও যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ না করলে অন্ধকারে ছেয়ে যাবে পুরো দেশ ও সমাজ।