October 21, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

আঁধার-বৃষ্টিতে টেস্ট ড্র

আঁধার-বৃষ্টিতে টেস্ট ড্র

আঁধার-বৃষ্টিতে টেস্ট ড্র

রানবন্যা তো ছিলই। তার উপর আলো-আঁধারির সঙ্গে পাল্লেকেলের মেঘময় আকাশটাও মাঝেমধ্যেই খেলেছে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা টেস্টে। আর সেই খেলাটা ছিল ম্যাচে হুটহাট বিরতি। হঠাৎ খেলা বন্ধ হয়ে যাওয়া। টেস্টের প্রথম দিন থেকেই আলোকস্বল্পতার সমস্যাটা হচ্ছিল। আগের দু-তিন দিন মাঝেমধ্যেই এ কারণে খেলায় ছেদ পড়ছিল। তবে শেষ দিনের শেষ সেশনটা পুরোপুরি শেষ করে দিয়েছে বৃষ্টি। পুরো ম্যাচে ৫ দিনে কখনও আলোকস্বল্পতা কখনও বৃষ্টি মিলিয়ে ৭০-৮০ ওভার অর্থাৎ প্রায় পুরো একদিনের সমান খেলা গড়ায়নি মাঠে। তার মধ্যে শেষ দিনেই প্রায় ৩৬ ওভার।
বোলার-ব্যাটসম্যান আর ফিল্ডারদের পাশাপাশি খেলুড়ে প্রকৃতির এই টেস্ট ম্যাচটা ‘রানবন্যার’ তকমা পেয়েও শেষ পর্যন্ত ড্র হয়েছে। ড্র’তেই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কাকে। তবে এই ড্রতে আইসিসি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে প্রথমবার ২০ পয়েন্ট ঘরে তুলতে পেরেছে মুমিনুল বাহিনী।
পাল্লেকেটে টেস্টে বাংলাদেশের করা ৫৪১ রানের জবাবে ৬৪৮ রানে থামে শ্রীলঙ্কা। দিনের ৬৮ ওভার খেলা বাকি রেখে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় লঙ্কানরা। উদ্দেশ্য ছিল, এই সময়ের মধ্যে সফরকারীদের অলআউট করে দেয়া। তৃতীয় ইনিসে ১০৭ রানে পিছিয়ে থেকে ব্যাটিং শুরু করে বাংলাদেশ। দলীয় ২৭ রানে ২ উইকেট হারানো বাংলাদেশের সামনে উজ্জীবিত শ্রীলঙ্কা তখন আরও মরিয়া হয়ে উঠে। বল হাতে দুর্দান্ত সব ডেলিভারিতে প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের চাপে রাখতে চায় স্বাগতিকরা।
কিন্তু তামিমের আগ্রাসী ব্যাটিং ও মুমিনুলের ধৈর্য্যের চরম পরীক্ষায় লাকমাল-বিশ্বরা সুবিধা করে উঠতে পারেনি। এ দুজন মিলে গড়ে ৭২ রানের জুটি। ২ উইকেটে ১০০ রান নিয়ে চা বিরতিতে যায় বাংলাদেশ। তখনও ৭ রানে পিছিয়ে ছিল বাংলাদেশ। তামিম ৭৪ ও মুমিনুল ২৩ রান নিয়ে অপরাজিত ছিলেন।
কিন্তু বৃষ্টিবাধায় চা বিরতির পর আর একটি বলও মাঠে গড়ায়নি। অপেক্ষার বিকেলও পাল্লেকেলের পশ্চিমাকাশে হালতে থাকে। এক পর্যায়ে ম্যাচ রেফারি ম্যাচের সমাপ্তি ঘোষণা করেন। তাতেই ড্র’য়ে জয়ের স্বাদ পায় টিম বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কাও হয়তো তথৈবচ!