September 18, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

কিশোরগঞ্জে প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের ৪ লাখ টাকা আত্নসাৎের অভিযোগ উঠেছে

কিশোরগঞ্জে প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের ৪ লাখ টাকা আত্নসাৎের অভিযোগ উঠেছে

কিশোরগঞ্জে প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের ৪ লাখ টাকা আত্নসাৎের অভিযোগ উঠেছে

কিশোরগঞ্জ(নীলফামারী)প্রতিনিধিঃ  নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের প্রধান হিসাব রক্ষক রুহুল আমিনের বিরোদ্ধে ৪ লাখ টাকা আত্নসাতের অভিযোগ উঠেছে। হিসাব রক্ষকের সাথে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শরিফা আক্তার আতাৎ করে এ কাজটি করেছে। এঘটনায় অফিস জুড়ে শিক্ষকদের মাঝে ক্ষোভ ও নিন্দা বিরাজ করছে। 
শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা, যায় হিসাব রক্ষক রুহুল আমিন। গত ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস পালনের জন্য প্রতিটি বিদ্যালয়ের জন্য বরাদ্ধ বাবদ সরকার কর্তৃক ২ হাজার টাকা করে ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা ও কয়েকটি স্কুলের বিদ্যুৎ বিল বাবদ প্রায় ৬০ হাজার টাকা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শরিফা আক্তার হিসাব রক্ষকের নিজ নামে ভাউচার করে সরাসরি ব্যাংক থেকে উত্তোলন করে আত্নসাৎ করেন।
এঘটনায় শিক্ষকদের মাঝে তোলপাড় শুরু হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষক জানায়, আমরা আমাদের স্কুলের বিদ্যুৎ বিল প্রতিমাস পকেট থেকে পরিশোধ করি।পরে সরকারের বরাদ্দ আসলে ওই বিলের কাগজ আমরা অফিসে জমা দিয়ে উত্তোলন করি।কিন্তু আমরা বিল নিতে অফিস এসে জানতে পারি টাকা উত্তোলন করে পরিশোধ দেখানো হয়েছে। এভাবে ঘটনাটি ফাঁস হয়ে যায়।

এবিষয়ে জানতে চাইলে প্রধান হিসাব রক্ষক রুহুল আমিন বলেন, গত রোববার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে বসে একটা আপোষরফা হয়েছে। তিনি আমাকে আজ ১৬ ডিসেম্বর সকাল ১০ টা পর্যন্ত সময় দিয়েছেন।
উপজেলা শিক্ষা অফিসার শরীফা আক্তার বলেন,আপনারা যা শুনেছেন তা সবই সত্য।
এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রোকসানা বেগমের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, ওই অফিস সহকারী রহুল আমিন সরকারী টাকা উত্তোলন করে নিজের কাছে রাখার কথা স্বীকার করেছেন। বুধবার আমার অফিসে এসে উক্ত টাকা ফেরৎ দেওয়ার কথা রয়েছে। যদি সে আজকের মধ্যে টাকা ফেরৎ না দেয় তাহলে আগামীকাল বৃহস্পতিবার জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকতার্র মাধ্যমে সরকারী অর্থ আত্নসাৎের অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে  বিভাগীয় ব্যাবস্থা গ্রহন করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।