October 27, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

পলাশবাড়ী পৌরসভার নব নির্বাচিত মেয়র বিপ্লবের দলীয় বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারের দাবী

পলাশবাড়ী পৌরসভার নব নির্বাচিত মেয়র বিপ্লবের দলীয় বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারের দাবী

পলাশবাড়ী পৌরসভার নব নির্বাচিত মেয়র বিপ্লবের দলীয় বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারের দাবী

গাইবান্ধা ঃ গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী পৌরসভার নির্বাচনে ব্যাপক ভোটে নৌকার প্রার্থীকে পরাজিত করে পৌরসভার প্রথম মেয়র নির্বাচিত হন জননেতা গোলাম সরোয়ার প্রধান বিপ্লব। এ পৌর নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে অংশ গ্রহণ করায় জেলা কমিটির এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম সরোয়ার প্রধান বিপ্লবকে দল থেকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়। এদিকে বিদ্রোহী মেয়র প্রার্থী হিসেবে অংশ গ্রহণ করার পর বিপুল ভোটে জয় লাভ করে প্রথম বারের মত পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হয় জননেতা গোলাম সরোয়ার প্রধান বিপ্লব। উপজেলা অআওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক হিসাবে তাকে বহিস্কার করা হলেও তিনি বর্তমান সময়ে উপজেলা যুবলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক হিসাবে উক্ত পদে বহাল রয়েছেন। বর্তমান সময়ে দলের প্রয়োজনে তাকে স্বপদে বহালের জোড় দাবী জানিয়েছেন দলীয় নেতাকর্মীরাসহ সচেতন মহল।
স্বাধীনতা পরবর্তী সময় পলাশবাড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রথম সভাপতি নির্বাচিত হয় প্রয়াত জননেতা বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব সাকোয়াত জ্জামান প্রধান বাবু। তাহার আপন বড় ভাই মুক্তিযুদ্ধের সময় পাক হানাদার বাহিনীর গুলিতে শহীদ হয়। শহিদ পরিবারের সদস্য হিসাবে এদিকে একাধারে প্রায় তিন যুগের অধিক সময় ধরে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন প্রয়াত বীরমুক্তিযোদ্ধা সাকোয়াত জ্জামান প্রধান বাবু চেয়ারম্যান। শুধু তাই নয় ব্যাপক জনপ্রিয়তা থাকা তিনি পর পর ৪ বার পলাশবাড়ী সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়। আওয়ামীলীগের দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে এই নেতা অনেক মামলা হামলা ও নির্যাতনের স্বীকার হয়েছেন।বাবার হাত ধরেই ছাত্র রাজনীতিতে জরিয়ে পরেন বাবু চেয়ারম্যানের বড় ছেলে গোলাম সরোয়ার প্রধান বিপ্লব। দীর্ঘদিন ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও পরে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়। এছাড়াও পরপর তিনবার তিনি গাইবান্ধা জেলা বাস মিনিবাস কোচ ও মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়। পলাশবাড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে বিপ্লব নেই মানে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক শক্তি নাই সাংগঠনিক শক্তি বজায় রাখতে হলে বিপ্লবের প্রয়োজন রয়েছে বলে মনে করেন আওয়ামীলীগের স্থানীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকগন। তারা আরো জানান , বাবার মতই তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া সংগঠন আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে বিশ্বাসী। বঙ্গবন্ধুকন্যা ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মানবতার মা জননেত্রী শেখ হাসিনা এমপি তার প্রেরনা।
বিগত সময়ে ও বর্তমান সময়ে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের যে কোন কর্মসূচি আন্দোলন সংগ্রামে প্রথম সারিতে দাড়িয়ে বরাবরই নেতৃত্ব দিয়েছেন গোলাম সরোয়ার প্রধান বিপ্লব। বাবা মতো না হলেও বর্তমান সময়ে আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক শক্তি হিসাবে তার ভূমিকা সকলের নিকট গ্রহনযোগ্য ও জনপ্রিয়।
এছাড়াও বিগত দিনে পলাশবাড়ী উপজেলায় জামাত বিএনপির রাজনৈতিক সহিংসতায় জ্বালাও পোড়াও আন্দোলনে অগ্নিসংযোগ করে জ্বালিয়ে দেওয়া হয় তার বসতবাড়ী ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। তবু ও আওয়ামীলীগের রাজনীতি থেকে পিছু টান ছিলো না বিপ্লবের।আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় যে কোন কঠোর কর্মসূচিতে অংশ গ্রহণ করা থেকে কেউ তাকে বিরত রাখতে পারেনি। ফলে অসংখ্য রাজনৈতিক মামলা হামলা ও পুলিশী নির্যাতনের স্বীকার হয়েছেন এই ত্যাগী নেতা।কারা বরন করেছেন অসংখ্যবার।অসহযোগ আন্দোলনে তার ভুমিকা ছিলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আন্দোলন চলাকালে পুলিশের গুলি থেকে ভাগ্যক্রমে তিনি বেচে গেলেও তার সাথে থাকা আপন মামা মমদেল পুলিশের গুলিতে গুরুতর আহয় হয়। যে গুলির চিহ্ন আজও বহন করে বেড়াচ্ছে এই পরিবার। এরপর আওয়ামী পরিবার হিসাবে জেলা জুড়ে পরিচিত হওয়ায় বিএনপি জামাত সরকারের সময় অপারেশন ক্লিনহাটের সময় তার ছোট ভাই শরিফুজ্জামান পল্বব সেনাবাহিনীর হাতে গ্রেফতার হয়ে ব্যাপকভাবে নির্যাতনের স্বীকার হয়। তবুও তিনি ও তার পরিবার থেমে যায়নি। সব সময় সাহস যুগিয়েছেন অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের।দুর্দিনে দলকে সুসংগঠিত করতে কাজ করেছেন নিরলস ভাবে। মানুষের ভোটার অধিকার রক্ষার আন্দোলনে গোলাম সরোয়ার প্রধান বিপ্লব ছিলো আপোষহীন একজন আওয়ামীলীগ নেতা।তিনি ন্যায়ের পথে সব সময় সাধারণ মানুষের পক্ষ অবলম্বন করেছেন।সুখে দুখে মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে কাজ করার ফলে অপ্রত্যাশিত বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনায় পুলিশ ও প্রশাসনের সাথে তার সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন হয়। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে বিগত পৌরসভা নির্বাচনে প্রশাসন তার বিপক্ষে রিপোর্ট প্রদান করায় তিনি দলীয় মনোনয়ন চেয়েও বঞ্চিত হয়।কিন্তু দীর্ঘ লড়াই সংগ্রামের মাধ্যমে পৌরসভা বাস্তবায়ন করায় জনগনের ভালোবাসার কাছে তিনি পরাজিত হয়ে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেন এবং জনগণ ভালোবেসে শত হুমকি ধামকিতেও জনগণ ভোট সেন্টারে উপস্থিত হয়ে ভোট দিয়ে বিপুল ভোটে পৌরসভার প্রথম মেয়র নির্বাচিত করেন।
এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের যুবক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক ও উপজেলা পূজা উৎযাপন পরিষদের সভাপতি বাবু নির্মল কুমার মিত্র বলেন, পলাশবাড়ীতে আওয়ামীলীগ মানে মরহুম বীরমুক্তিযোদ্ধা সাকোয়াতজ্জামান বাবু চেয়ারম্যানের পরিবার । এ পরিবারটি ছাড়া পলাশবাড়ী উপজেলায় আওয়ামীলীগ শক্তিহীন সংগঠন হিসাবে দাড়াবে। তাই দলীয় প্রধান ও আওয়ামীলীগের নীতিনির্ধারণী মহলের বিষয়টি বিবেচনা করা দরকার দলের স্বার্থে।
মহদীপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মহিউজ্জামান খোকন বলেন,পলাশবাড়ীতে আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক শক্তির বিস্তার ঘটাতে মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা বাবু চেয়ারম্যানের ও পরিবারের ভুমিকা কম নয়।তারা এ সংগঠনের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য ব্যাপক ভাবে নির্যাতন ও ষরযন্ত্রের স্বীকার হয়েছেন। তিনি আরো বলেন মরহুম বীরমুক্তিযোদ্ধা বাবু চেয়ারম্যান ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রান তার জনপ্রিয়তার প্রমাণ বর্তমান দলীয় সভাপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমপি স্বয়ং নিজেই। এ উপজেলায় দলকে সুসংগঠিত করতে হলে এ পরিবারটির প্রয়োজন রয়েছে।
এদিকে এ বিষয়ে পলাশবাড়ী প্রেসক্লাবের সভাপতি রবিউল ইসলাম পাতা বলেন, নবনির্বাচিত মেয়র গোলাম সরোয়ার প্রধান বিপ্লবের বাবা অত্র উপজেলা জুড়ে ব্যাপক জনপ্রিয় ও কর্মী বান্ধব নেতা ছিলেন। পিতার জনপ্রিয়তা ও পরিচিতি কাজে লাগানোর পাশাপাশি বিগত সময়ে দলের হয়ে বিএনপি জামাতের বিগত সময়ে সহিংসতা ও নাশকতার প্রতিরোধে ভূমিকা পালন করায় তিনি উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পেয়েছেন। এরপর অত্র পৌরসভার ভোটাধিকার বাস্তবায়ন আন্দোলনে ভুমিকা রাখায় ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করায় বর্তমান সময়ে নৌকার বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দিতা করে ব্যাপক ভোটে জয়ী হয়েছেন।
প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম বলেন, নবনির্বাচিত মেয়র গোলাম সরোয়ার প্রধান বিপ্লব পিতার যোগ্য সন্তান হিসাবে আওয়ামীলীগের প্রান হিসাবে পরিণত হয়েছেন । তাকে ছাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগ ব্যাপক শূন্যতায় রয়েছে । যার প্রমাণ গত পৌরসভা নির্বাচন । দলের স্বার্থে তাকে দলীয় পদে ফিরে আনা প্রয়োজন এবং দলের প্রয়োজনে তাকে গুরুত্বপূর্ন পদে রাখা উত্তম । এতে করে সংগঠনটি যেমন শক্তিশালী হবে তেমনি দলীয় নেতাকর্মীরা নির্ভরযোগ্য নেতৃত্ব পাবে বলে আমি মনে করি ।
এ বিষয়ে নবনির্বাচিত মেয়র গোলাম সরোয়ার বিপ্লব বলেন,আমার পিতা বঙ্গবন্ধুর আর্দশের পরীক্ষিত সেনা হিসাবে সংগঠনে জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত নেতৃত্ব দিয়েছেন। আমাদের পরিবার আওয়ামীলীগ পরিবার হিসাবে জেলা ,উপজেলা ও গোটাদেশ জুড়ে পরিচিত রয়েছেন। আমি আগেও আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে ছিলাম বর্তমানেও রয়েছি আগামী দিনেও থাকবো ইন্নশাআল্লাহ্। তিনি আরো বলেন , দলীয় নেতাকর্মীদের প্রানের দাবী বাস্তবায়নে দলীয় প্রধান বঙ্গবন্ধুকন্যা ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সঠিক সিদ্ধান্ত নিবেন বলে আমি বিশ্বাস করি।
এদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসহযোগী সংগঠনের প্রায় কয়েক হাজার নেতাকর্মী ও সমর্থকরা মনে করেন, তার বাবার দীর্ঘ রাজনৈতিক সংগ্রামী জীবন,তার পরিবার ভূমিকা ও বিপ্লবের ব্যক্তিগত রাজনৈতিক অবদান ও ত্যাগের কথা বিবেচনা করে ঘোষিত দলীয় বহিস্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হলে আগামীতে বিএনপি জামায়াত অধ্যাষিত উপজেলা পলাশবাড়ীতে আওয়ামীলীগের রাজনীতি হবে শক্তিশালী ও সুসংগঠিত। তারা বিষয়টি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখে দ্রুত নবনির্বাচিত পৌর মেয়র গোলাম সরোয়ার প্রধান বিপ্লব এর দলীয় বহিস্কারাদেশ প্রত্যাহার করার জন্য দলীয় সভানেত্রী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা এমপি ও দলীয় সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এমপির জরুরি প্রয়োজনীয় হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।