August 4, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

রংপুরে গরুর খামারিদের প্রণোদনা বণ্টনে ব্যাপক অনিয়ম-স্বজনপ্রীতি, ক্ষুদ্ধ প্রকৃত খামারীরা

রংপুরে গরুর খামারিদের প্রণোদনা বণ্টনে ব্যাপক অনিয়ম-স্বজনপ্রীতি, ক্ষুদ্ধ প্রকৃত খামারীরা

ফুলবাড়ীতে কাউন্সিলরের অনিয়ম দূনীতি॥ চাকুরি ও জমি বিক্রয়ের নাম করে ১৫ লক্ষ ৯০ হাজার টাকা আত্মসাৎ॥

দিনাজপুর ফুলবাড়ী প্রতিনিধি
দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শ্রী হারান দত্তের অনিয়ম দূর্নীতি। শ্রী হারান দত্ত চাকুরি ও জমি বিক্রয়ের নাম করে ১৫ লক্ষ ৯০ হাজার টাকা আত্মসাৎ।
এলুয়াড়ী ইউপির খাজাপুর গ্রামের মৃত হাফিজ উদ্দীনের পুত্র ও শহীদ স্মৃতি আদর্শ ডিগ্রী কলেজের সহকারী অধ্যাপক আব্দুর রউফ এর লিখিত অভিযোগে জানা যায়, ফুলবাড়ী পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও সুজাপুর গ্রামের শ্রী হারান দত্ত শিবনগর ইউপির গোপালপুর মৌজার ৮৩.৫০ শতক জমি বিক্রয় করার প্রস্তাব দিলে আমার ভাগিনা মিজানুর রহমান কে সঙ্গে নিয়ে ২০১৫ ইং সালে কলেজে এসে পরিচয় করিয়ে দেয়। সেই সময় ফুলবাড়ী পৌরসভার নির্বাচন চলছিল সেই সুবাদে উক্ত জমির কাগজ পত্রের ফটোকপি প্রভাষক আব্দুর রউফকে প্রদান করেন কাউন্সিলর হারান দত্ত। তার সাথে প্রতি শতাংশ জমি দাম হয় ১৫ হাজার টাকা। দাম হওয়ার পর প্রভাষক তার কথা মত টাকা জোগাড় করে আপাতত ভাগিনা মিজানুর রহমান এর কথামত শ্রী হারান দত্ত এর উপর বিশ্বাস রেখে গত ১৬/১২/২০১৫ ইং তারিখে ২ লক্ষ টাকা, ২৫/১২/২০১৫ ইং তারিখে ১লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, ২৭/১২/২০১৫ ইং তারিখে ৫০ হাজার টাকা, ৮/১১/২০১৬ ইং তারিখে ২ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা, ০২/০১/২০১৭ ইং তারিখে ২ লক্ষ ২০ হাজার টাকা, ০১/০২/২০১৭ ইং তারিখে ৫০ হাজার টাকা, এই নিয়ে সর্ব মোট ৯ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা ঐ কলেজের প্রভাষক বিভিন্ন তারিখে টাকা প্রদান কালে সাক্ষীগণ উপস্থিত ছিলেন। টাকাগুলি নির্বাচনের আগে ও পরে কাউন্সিলর কে দিয়ে থাকেন। শ্রী হারান দত্ত কাউন্সিলর নির্বাচীত হওয়ার পরে জমি রেজিষ্ট্রী করে দিনে মর্মে কালক্ষেপন করে থাকে। অনেক ঘুরাঘোরি করার পরেও কোন প্রকার শুরাহা করতে না পেরে প্রভাষক জানতে পারেন শ্রী হারান দত্ত অন্য লোকের কাছে বিক্রি করেন। এই ঘটনায় প্রভাষক ফুলবাড়ী উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শ্রী মঞ্জুর রায় চৌধুরীর নিকট বিচার দিলে সেই বিচারে কোন শুরাহা হয়নি। অবশেষে হারান দত্ত টাকা নেয় নি বলে জানিয়ে দেন। এবং ঐ বিচারে টাকা গ্রহণ করছেন মর্মে শিকার করেন। আব্দুর রউফ ফুলবাড়ী পৌরসভায় বিচার প্রার্থনা করেন। যাহার কেস নং-৫৬/২০২০-২১। তারিখ-০৩/১১/২০২০ ইং নোটিশ প্রদান করেন। গত ১১/১১/২০২০ ইং তারিখে বিচারের জন্য পৌরসভায় উভয় কে ডাকা হয়। কিন্তু পৌর চেয়ারম্যান বিচারের কোন শুরাহা করেন নি। থানায় অভিযোগ দিলেও থানায় কোন বিচার পাননি। আবশেষে গত ০৯/১১/২০২০ ইং তারিখে পুলিশ সুপারকে অবগত করেন। এবং পরবর্তীতে ২০/১১/২০২০ ইং তারিখে বিভিন্ন দপ্তরে ন্যায় বিচারের আশায় অভিযোগ করেন প্রষাভক।
এদিকে শ্রী হারান দত্ত বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন বাস্তবায়ন ফাউন্ডেশন দক্ষিণ বাসুদেপুর স্কুল, ফুলবাড়ী, দিনাজপুর এ চাকুরী দেওয়ার কথা বলে সুজাপুর কাঁচা এর স্থ্য়াী বাসিন্দা আইয়ুব আলীর কাছ থেকে ২ লক্ষ টাকা, তেতুলিয়া গ্রামের কায়ছার এর নিকট ১ লক্ষ টাকা, সুজাপুর গ্রামের কাদের এর নিকট ২লক্ষ টাকা, চঞ্চল এর নিকট ১ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা গ্রহণ করেন।
তৎকালীন ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর স্বাক্ষর জাল করে জমির কাগজপত্র তৈরি করতে গিয়ে ধরা পড়েন। এই নিয়েও তার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে। এই টাকা চাইতে গিয়ে অদ্যবধি আজ পর্যন্ত ভূক্তভূগীদেরকে টাকা ফেরত না দিয়ে হয়রানি করছেন। এছাড়াও কাউন্সিলর হারান দত্তের বিরুদ্ধে বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, মাতৃকালীন ভাতা এবং প্রতিবন্ধী ইত্যাদি ভাতার উৎকোচ নেওয়ার ব্যাপারে এলাকাবাসীর অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে ভূক্তভুগীরা ন্যায় বিচার পেতে প্রশাসনের আশুহস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।