December 8, 2021

Jagobahe24.com

সত্যের সাথে আপোসহীন

ফুলবাড়ী থানায় মোশাররফ হোসেন এর বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা দায়ের॥

ফুলবাড়ী থানায় মোশাররফ হোসেন এর বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা দায়ের॥

ফুলবাড়ী থানায় মোশাররফ হোসেন এর বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা দায়ের॥

দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ
ফুলবাড়ী থানায় মোশাররফ হোসেন এর বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা দায়ের করেন পুতুন বেগম (৩৪)। দিনাজপুর জেলার ফুলবাড়ী উপজেলার পৌরসভা এলাকার ৬নং ওয়ার্ডের চক শাহাবাজপুর গ্রামের মোঃ রাসেদুল ইসলাম এর স্ত্রী মোছাঃ পুতুল বেগম এর গত ১৫.১০.২০২১ ইং তারিখে ফুলবাড়ী থানায় দায়েরকৃত মামলা সূত্রে জানা যায় যে, একই গ্রামের তমিজ উদ্দীন এর পুত্র মোঃ মোশাররফ হোসেন (৪৬) আমার স্বামী মেসি ট্রাক্টর গাড়ির ড্ইাভার সে মাঝে মধে দিনে ও রাতে ট্রাক্টার গাড়ী নিয়ে বাড়ী হতে বাহির হয়ে যায়। দুই তিন দিন পর বাড়ীতে আসে। আমার মেয়ে রিয়া মনি বর্ষা (১৫) ও ছেলে মোঃ পাপ্পু হোসেন (১০) সহ আলাদা আলাদা ঘরে থাকি। আমার বাড়িতে স্বামী না থাকার সুযোগে আসামী মোঃ মোশাররফ হোসেন প্রায় সময় আমাকে প্রেম-ভালবাসা ও বিভিন্ন অঙ্গভঙ্গি সহ কু-প্রস্তাব দিত। এরপর বিভিন্ন সময় আসামী আমাকে মোবাইল ফোনে কল দিয়েও কথা বলে ও বিবাহের প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন স্থানে দেখা করার জন্য বলে এবং কু-প্রস্তাব দেয়।
গত ১১/১০/২০২১ ইং তারিখ রাত অনুমান ১২.২০ ঘটিকায় আমার কন্যা ও পুত্র সন্তান আলাদা আলাদা ঘরে ঘুমাইয়া পড়িলে এবং ঐ দিন আমার স্বামী বাড়িতে না থাকার সুযোগে মোশারফ হোসেন আমার বাড়ির সদর দরজা কৌশলে খুলিয়া আমার বাড়িতে প্রবেশ করে এবং ভাবি ভাবি বলিয়া আমাকে ডেকে। আমি এত রাতে ডাকার কারণ জিজ্ঞেস করিলে উল্লেখিত আসামি জানান, জরুরী কথা আছে, একটু দরজা খোলেন। তখন আমি মোশাররফ হোসেন এর কথা মত সরল বিশ্বাসে ঘরের দরজা খুলে ঘর হইতে বাহিরে আসি। আমার স্বামী বাড়িতে না থাকার সুযোগে মোঃ মোশাররফ হোসেন আমাকে অসৎ উদ্দেশ্য চরিতার্থের নিমিত্তে পিছন দিক হইতে একাকী পাইয়া আমাকে জাপ্টাইয়া ধরে। আমি চিৎকার করার চেষ্টা করিলে আসামী আমার মুখ চেপে ধরে ও মুখে কাপড় গোজাইয়া দিয়ে ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে মোশাররফ হোসেন আমাকে ঘরের মেঝেতে শোয়াইয়া আমার পরণের কামিজ-পায়জামা টানিয়া ছিড়িয়া ফেলিয়া আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর:পূর্বক ধর্ষণ করে। আমি শত চেষ্টা করেও তার সাথে ধস্তাধস্তি করে নিজের ইজ্জত রক্ষা করিতে পারি নাই।
তারপর আমি সুযোগ মত চিৎকার করিতে থাকিলে স্থানীয় মোঃ আলম (৪০), মোঃ পুলোট (৩০), ও মোঃ সিরাজুল (২৮) সাক্ষীগণ দ্রুত আমার বাড়ীতে আসে এবং আমাকে বিবস্ত্র অবস্থায় দেখিতে পায়। লোকজন আসিতে থাকিলে ধর্ষণ শেষে মোশাররফ হোসেন আমাকে ছেড়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনার দিন আমি স্বামীকে ভয়ে বিষয়টি অবগত করি নাই। এ বিষয়ে পুতুল বেগম ফুলবাড়ী থানায় মোশাররফ হোসেন এর বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশোধনী/২০০৩) এর ৯ (১) ধারায় মামলা দায়ের করেন। যাহার মামলা নং-১৩। এই ধর্ষণের বিষয়ে ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ আশ্রারাফুল ইসলাম এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, মামলা হয়েছে তদন্ত সাক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।